আজ: ২৯শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, রবিবার, ১৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২৮শে শাওয়াল, ১৪৪৩ হিজরি, সকাল ৭:৫৯
সর্বশেষ সংবাদ
জেলা সংবাদ নবীনগরে সংবাদ প্রকাশের জেরে সাংবাদিককে সায়েস্তা করতে একাধিক মিথ্যে হয়রানিমূলক মামলা!

নবীনগরে সংবাদ প্রকাশের জেরে সাংবাদিককে সায়েস্তা করতে একাধিক মিথ্যে হয়রানিমূলক মামলা!


পোস্ট করেছেন: মতপ্রকাশ ডেস্ক | প্রকাশিত হয়েছে: ২৮/০৩/২০২২ , ৯:৪৪ অপরাহ্ণ | বিভাগ: জেলা সংবাদ


বিপ্লব নিয়োগী তন্ময়:

গত বছর মিথ্যে অভিযোগ এনে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা দিয়ে নাজেহাল করার পর এবার ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলার দুই সাংবাদিকের বিরুদ্ধে সীতানাথ সূত্রধর নামের এক ব্যক্তি আবারও জঘণ্য মিথ্যা অভিযোগ এনে একটি মামলা দিয়ে হয়রানী করছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। আগামী ৩০ জানুয়ারি এই মামলায় হয়রানীর শিকার হওয়া ওই দুই সাংবাদিককে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজ্ঞ আদালতে হাজির হতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। (মামলা নং- পি-২১৬, ধারা- ১০৭/১১৪/১১৭ গ)
অথচ ঘটনার সময় অভিযুক্ত দুই সাংবাদিক এলাকাতেই (নবীনগরে) ছিলেন না বলে জোর গলায় দাবী করেছেন।
মামলার আসামী ওই দুই সাংবাদিক হলেন দৈনিক বাংলা ৭১ এর বিশেষ প্রতিনিধি (প্রাক্তন প্রথম আলো ও কালের কণ্ঠ) ও নবীনগর মলয়া খেলাঘর আসরের সভাপতি, সিনিয়র সাংবাদিক গৌরাঙ্গ দেবনাথ অপু ও দৈনিক মানবকণ্ঠের নবীনগর প্রতিনিধি মিঠু সূত্রধর পলাশ। পাশাপাশি মামলায় মিঠু সূত্রধরের এক কাকাতো ভাই ব্যবসায়ী কালীপদ সূত্রধরকেও তিন নম্বর আসামি করা হয়েছে। এ ঘটনায় বিভিন্ন মহলে নিন্দার ঝড় উঠেছে।
জানা গেছে, নবীনগর কালীবাড়ির সভাপতি সীতানাথ সূত্রধর তার দায়ের করা মামলায় অভিযোগ করেন গত ২২ ফেব্রুয়ারি সকাল আনুমানিক ১০ টার দিকে উপজেলা সদরের ব্যস্ততম উপজেলা পরিষদ সড়কে অবস্থিত বসুন্ধরা মার্কেটে জনসম্মুখে সাংবাদিক গৌরাঙ্গ দেবনাথের নেতৃত্বে দা, লাঠি, লোহার রডসহ সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা সীতানাথের ওপর হামলা করতে আসেন। এসময় তার আর্তচিৎকারে হামলাকারীরা পালিয়ে যায়। তবে পালিয়ে যাওয়ার আগে সাংবাদিক গৌরাঙ্গের নেতৃত্বে আসা সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা সীতানাথকে প্রাণে মেরে তার লাশ গুম করে ফেলবে বলেও হুমকী দিয়ে যায়।
এলাকাবাসি জানান, এর আগে গত বছর করোনাকালীন প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণের তালিকায় নবীনগর হিন্দু বৌদ্ধ খ্রীষ্টান ঐক্যপরিষদের সেক্রেটারী সীতানাথ সূত্রধর ক্ষমতার অপব্যবহার করে গরীব মানুষের নামের বদলে তার নিজের ছেলের বউ, ভাগ্নে, বোন, ভ্রাতুষ্পুত্রসহ অসংখ্য নিজের আত্মীয় স্বজনের নাম ওই তালিকায় তালিকাভূক্ত করেছিলেন। এ নিয়ে সাংবাদিক গৌরাঙ্গ দেবনাথ অপু সেসময় কালের কণ্ঠে সীতানাথের এসব অনিয়ম ও দুর্নীতি নিয়ে একাধিক রিপোর্ট করলে, সীতানাথ অপুর ওপর ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন। পরবর্তীতে ক্ষিপ্ত সীতানাথ সূত্রধর সাংবাদিক গৌরাঙ্গ দেবনাথ অপুর উপর মিঠু সূত্রধরের ফার্ণিচার দোকানে লোকজন নিয়ে সশস্ত্র হামলা চালায়। সেসময় সাংবাদিক মিঠু ও তার চাচাতো ভাই কালীপদসহ পথচারীরা সীতানাথের হাত থেকে সাংবাদিক অপুকে রক্ষা করেন।
সূত্র জানায়, সীতানাথ একটি মহলের সহযোগিতায় এরপর সাংবাদিক অপু ও মিঠুর বিরুদ্ধে গত বছরের অক্টোবর মাসে সাইবার ট্রাইবুনালে মিথ্যে অভিযোগ এনে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করেন। এরপর থেকে সীতানাথ নানাভাবে দুই সাংবাদিককে হয়রাণী করতে থাকেন। যার সর্বশেষ উদাহরণ এই জঘণ্য মিথ্যে মামলা (নম্বর- পি-২১৬)।
এ বিষয়ে সাংবাদিক গৌরাঙ্গ দেবনাথ অপু বলেন,’এটি হাস্যকর মামলা। কারণ, ঘটনার দিন গত ২২ ফেব্রুয়ারি আমি ভৈরবে ছিলাম। যার প্রমাণপত্রও রয়েছে।’
সাংবাদিক অপু জানান, মূলত সীতানাথের দুর্নীতি ও অপকর্ম নিয়ে পত্রিকায় রিপোর্ট করায় সে ক্ষিপ্ত হয়ে স্থানীয় একটি চিহ্ণিত মহলের সহযোগিতায় আমাকে শুধু হয়রাণী করতে একের পর এক এসব মামলা ও হামলা করার দু:সাহস করছে। এসব এখানকার সকলেই অবগত থাকলেও ওই প্রভাবশালী মহলটির ভয়ে কেউ মুখ খুলে না। সুতরাং সীতানাথকে যারা পেছন থেকে শেল্টার দিচ্ছেন, সবার আগে তাদের মুখোশ উন্মোচন করার জন্য আমি সাংবাদিকের কাছে সনির্বন্ধ অনুরোধ করছি।’
এ বিষয়ে মামলার অপর দুই আসামি সাংবাদিক মিঠু সূত্রধর পলাশ ও তার ভাই কালীপদ সূত্রধর বলেন,’এটি জঘণ্য মিথ্যে মামলা। কারণ ঘটনার দিন আমরাতো নবীনগরেই ছিলাম না। মূলত: সীতানাথের সশস্ত্র হামলা থেকে সাংবাদিক গৌরাঙ্গদাকে রক্ষা করার পর থেকেই তিনি আমাদের উপর ক্ষুব্ধ হয়ে এমন মিথ্যে সাজানো জঘণ্য মামলা করেছেন। আমরা তাই আইনগত ভাবেই তাকে মোকাবেলা করবো।’
এ বিষয়ে সীতানাথ সূত্রধরের সাথে বারবার যোগাযোগ করার চেষ্টা করেও তার বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

Comments

comments

Close