আজ: ২১শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, শনিবার, ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২০শে শাওয়াল, ১৪৪৩ হিজরি, রাত ২:২১
সর্বশেষ সংবাদ
জেলা সংবাদ গাইবান্ধায় ভাতার কথা বলে লাখ লাখ টাকা নিয়ে প্রতারক লাপাত্তা, চা দোকানীকে ব্লাকমেইল করে স্বীকারোক্তি আদায়

গাইবান্ধায় ভাতার কথা বলে লাখ লাখ টাকা নিয়ে প্রতারক লাপাত্তা, চা দোকানীকে ব্লাকমেইল করে স্বীকারোক্তি আদায়


পোস্ট করেছেন: মতপ্রকাশ ডেস্ক | প্রকাশিত হয়েছে: ১৯/০৩/২০২২ , ৬:০৩ অপরাহ্ণ | বিভাগ: জেলা সংবাদ


গাইবান্ধা প্রতিনিধি : গাইবান্ধায় বয়স্ক, বিধবা,প্রতিবন্ধী ও পুষ্টিভাতা পাইয়ে দেয়ার কথা বলে লাখ লাখ টাকা নিয়ে প্রতারক নুরমিয়া লাপাত্তা। অসহায় এক চা দোকানী মুক্তি বেগমকে আটকিয়ে ব্লাকমেইল করে মিথ্যা স্বীকারোক্তির ভিডিও ধারণ করে ২০ হাজার টাকা দাবী করলে ১০ হাজার টাকা গাইবান্ধা সদর উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান তাসলিমা সুলতানা স্মৃতি ও তার স্বামীর হাতে দিয়ে ছাড়া পায় সেই চা দোকানদার মুক্তি বেগম। এ ঘটনায় গাইবান্ধা সদর থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন ভুক্তভোগী পরিবার।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে মুক্তি বেগমের পক্ষে তার স্বামী রাজু মিয়া ও ভাগিনা লিখন মিয়া বলেন, গাইবান্ধা সদর উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান তাসলিমা সুলতানা স্মৃতি, তার স্বামী আল আমিন এর নেতৃত্বে সংঘবদ্ধ একটি প্রতারক চক্রের সক্রিয় সদস্য ছিলেন বর্তমানে পলাতক নুরু মিয়া। প্রতারক ঐ নুরু মিয়ার হয়ে মাঠ পর্যায়ে টাকা তোলার কাজ করতো শিল্পী বেগম, রহিমা বেগম ফিরোজা বেগম, ছুরুতন বেগম ও ইরাক মিয়াসহ আরো অনেকে। এরা তাদের নিজেদের কুকর্ম ঢাকতে পরিকল্পিতভাবে আমাকেও অপরাধী সাজানোর চেষ্টা করছেন। অথচ প্রকৃত অপরাধী এবং তাদের দোসর নুরু মিয়াকে বাঁচাতেই  কৌশলে অসহায় ও হতদরিদ্র চা দোকানী মুক্তি বেগমকে জোরপূর্বক স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী ভিডিও করে তার উপর মিথ্যাভাবে জোরপূর্বক দায় চাপানোর অপচেষ্টার বিরুদ্ধে অসহায় ঐ পরিবারটি জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের জরুরী হস্তক্ষেপ চেয়েছেন। এছাড়া অভিযুক্ত ও পলাতক নুরুমিয়াকে খুঁজে বের করে এই ঘটনার আসল গডফাদার কারা তাদের মুখোশ উন্মোচন করার জোর দাবী জানান অসহায় চা দোকানদার মুক্তি বেগম ও তার পরিবার। গাইবান্ধা সদর উপজেলার এই মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান তাসলিম সুলতানা স্মৃতি ও তার স্বামী আল আমিন সেলাই মেশিন দেয়ার কথা বলে গত ৩১ জানুয়ারি ২০২২ ইং তারিখ বিকাল ৪টায় কৌশলে তাদের বাসায় ডেকে নিয়ে চা দোকানদার মুক্তি বেগমকে সন্তানসহ আটক করে মামলাসহ পুলিশের ভয় ভীতি ও মারধরের ভয় দেখিয়ে মিথ্যাভাবে টাকা নেয়ার স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী ভিডিও করা, সেই ভিডিও ভাইরাল করার ভয় দেখিয়ে ২০ হাজার টাকা দাবী করাসহ ভুয়া ভাতার বই তৈরীর ঘটনায় এই মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান স্মৃতি, তার স্বামী আল আমিন, তার ভাগিনা শাহিন ও তাদের অফিসে কর্মরত সাদমানসহ পলাতক নুরু মিয়া এবং মাঠে কাজ করা শিল্পী বেগম, রহিমা বেগম, ফিরোজা বেগম, ছুরুতন বেগম ও ইরাক মিয়া প্রত্যেকেই এই অন্যায় ও অপরাধের সাথে জড়িত বলেও লিখিত বক্তব্যে উল্লেখ করেন চা বিক্রেতা মুক্তি বেগমের স্বামী রাজু মিয়া ও লিখন মিয়া।
এই অন্যায় ও অপরাধের ঘটনাগুলোর সঠিক তদন্ত, ১০ হাজার টাকা ফেরতসহ জোরপূর্বক চা দোকানী মুক্তি বেগমের ধারণ করা সেই ভিডিও ডিলিট করে দেয়ার জোর দাবী জানিয়ে ভাতার কার্ড নিয়ে প্রায় কোটি টাকার প্রতারনা ও ভুয়া ভাতার বই তৈরীতে পলাতক নুরু মিয়ার গডফাদার মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান তাসলিমা সুলতানা স্মৃতি, তার স্বামী আল আমিনসহ পুরো ঐ প্রতারক চক্রের দৃষ্টান্তমূলক বিচার চান ভুক্তভোগী দরিদ্র চা দোকানী মুক্তি বেগম ও তার পরিবার।

Comments

comments

Close