আজ: ২২শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, রবিবার, ৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২১শে শাওয়াল, ১৪৪৩ হিজরি, রাত ১২:১১
সর্বশেষ সংবাদ
আন্তর্জাতিক তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ানের হৃদয় ছোঁয়া বক্তব্য

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ানের হৃদয় ছোঁয়া বক্তব্য


পোস্ট করেছেন: মতপ্রকাশ ডেস্ক | প্রকাশিত হয়েছে: ১৯/০৩/২০২২ , ৪:২৮ অপরাহ্ণ | বিভাগ: আন্তর্জাতিক


সম্মানীত শিক্ষক চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় আরবি বিভাগের প্রফেসর ড. আব্দুল কাদের স্যারের টাইমলাইন থেকে কপি…..

গত ফেব্রুয়ারিতে বার দিন তুরস্কের প্রধানতম শহর ইস্তাম্বুল সফর করে আমি অত্যন্ত কৌশলী এরদোগানের নিম্নোক্ত বক্তব্যের সত্যতা পেয়েছি।

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট এরদোগান
পৃথিবীর সকল মুসলিমদের উদ্দেশ্য বলা কথা :
কোথার তুরস্ককে আমি কোথায় নিয়ে এসেছি, একবারও কি বিবেকের কাছে প্রশ্ন করেছেন??? যে দেশে মসজিদে আজান চালুর অপরাধে প্রধানমন্ত্রীকে
ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়। যে দেশে ছোট্ট একটি ইসলামিক কবিতা লেখার কারণে মেয়র কে জেলে দেয়া হয়। সেই দেশে কিন্তু আপনি জন্ম নেননি আমি জন্ম নিয়েছি। আপনি বড় হননি আমি বড় হয়েছি। আমি দেখেছি ইসলামের উপর দমনপীড়ন হতে, আমি দেখেছি কাউকে নামাজ পড়ার আহ্বান জানালে সাজা ভোগ করতে। আপনি কিন্তু বাস্তবে কিছুই দেখেননি।
প্রিয় ভাই, হয়তোবা আমি আপনার মত শক্তিশালী নই। হয়তোবা আমি আপনার মত নিষ্পাপ নই, হয়তোবা আপনার একদিনের আমলের সোয়াবের কাছে আমার সারা জীবনের আমলের সোয়াব কিছু নয়। হয়তোবা আপনি হাজার হাদিস তেলাওয়াত করেন প্রতিদিন। আপনার আমলের শক্তি অনেক, আপনি আমলের শক্তির জোরে দোয়া করে ফেরেশতা নামাতে পারেন। আপনি চাইলেই কোটি কোটি ফেরেশতা দিয়ে ইসরাইলকে গুড়িয়ে দিতে পারেন। আপনার এতো ইমানি ক্ষমতা থাকতে, আপনি আমাকে ইসরাইলের বিরুদ্ধে উস্কানি দেন কেন??? আমি কি আপনার মত চুপ করে বসে আছি??? সারা বিশ্বের কোটি কোটি মানুষ কি আমাকে এমনি ভালোবাসে???

প্রিয় দ্বীনি ভাই, আপনার শরীর থেকে বেহেশতের সুগন্ধি বের হয় কিন্তু আমার শরীর থেকে এখনো সেকুলারের দুর্গন্ধ বের হয়। হয়তোবা মাদ্রাসায় যাবার কারণে আপনার চাচা আপনাকে পুরস্কৃত করেছিল। আর আমার চাচা আমাকে বলেছিল, মাদ্রাসায় পড়ে কি হবে???এই দেশে কোন চাকরি পাবে না। বড় হয়ে কি মরা মানুষের গোসল করিয়ে সংসার চালাবে??? অনেক কষ্ট করে কোরআনের হাফেজ হয়েছি। পাড়া-প্রতিবেশী বন্ধু মহল আমাকে ভালো চোখে দেখত না। তারা ভাবতো আমি আতাতুর্কের সংবিধান বিরোধী। তারা ভাবতো আমি আতাতুর্কের সংবিধান বুকে ধারণ করি না, বুকে ধারণ করি ইসলাম প্রীতি। তারা সেদিন ঠিকই ধারণা করেছিল কিন্তু আমি তাদের কাছে ধরা দিতাম না। তাদের কাছে ধরা দিলে আমার ফাঁসি হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা ছিল। তখন আপনি দোয়া করে হাজার হাজার ফেরেশতা নামিয়ে আমাকে বাঁচাতে পারতেন না।

প্রিয় দ্বীনি ভাই, আমি যখন মেয়র ছিলাম। ছোট্ট একটি ইসলামী কবিতা লেখার কারণে আমাকে জেলে দেওয়া হলো। আমার মেয়রের দায়িত্ব কেড়ে নেয়া হলো, তখন কোথায় ছিল আপনার ঈমানী শক্তি??? কোথায় ছিল আপনার ফেরেশতা বাহিনী??? জেলের ওই অন্ধকার কারাগারে মশা গুলো কে ও মনে হচ্ছিল আতাতুর্কের সংবিধানের পাহারাদার।

প্রিয় দ্বীনি ভাই, আমি যখন তুরস্কের প্রধানমন্ত্রী হলাম। তখন একটি অনুষ্ঠানে আমার ছোট্ট মেয়েটি কে নিয়ে গিয়েছিলাম। কিন্তু আতাতুর্কের সংবিধান আমার ছোট্ট মেয়েটি কে অনুষ্ঠানে ঢুকতে দেয়নি। আমার ছোট্ট মেয়েটির অপরাধ কি ছিল আপনারা কি জানেন??? আমার ছোট্ মেয়েটির অপরাধ হল তার মাথায় স্কাপ পড়া ছিল। আমি প্রধানমন্ত্রী হওয়া সত্ত্বেও আমার মেয়েকে অনুষ্ঠানের ভিতরে নিতে পারেনি। এত কিছুর পরেও আমাকে বাধ্য হয়ে আতাতুর্কের সংবিধানের প্রতি অনুগত্য প্রকাশের অভিনয় করে যেতে হয়েছে। আমার কিছুই করার ছিল না, তখন আমি ছিলাম একা, শুধুই একা। আমাকে নিজের কাছেসংখ্যালঘু মনে হতো।

প্রিয় দ্বীনি ভাই, আপনাকে আমি তুরস্ক সফরের আমন্ত্রণ জানাচ্ছি। আপনি আসুন, দেখে যান, তুরস্কের প্রত্যেকটি মসজিদের মাইকে আজান হচ্ছে। মা বোনরা এখন আর প্রকাশ্যে বিকিনি ড্রেস পড়ে সমাজে ঘোরাঘুরি করে না। মা বোনরা এখন তাদের নতুন ইসলামী প্রজন্মের সামনে বিকিনি ড্রেস পরতে লজ্জা অনুভব করে। এখন মাদ্রাসায় আনন্দ উৎসব সহকারে কোরআন শিক্ষা হচ্ছে। এখন আর মাদ্রাসার ছাত্ররা নিজেকে কোরআনের হাফেজ দাবি করতে ভয় করে না। এখন তুরস্কের আলেমরা নির্ভয়ে ইসলাম প্রচার করছে। এখনের হাফেজরা, আলেমরা তারা জানে তাদের একজন এরদোগান আছে, কিন্তু আমার সময় কে ছিল???

প্রিয় দ্বীনি ভাই, আপনি প্রশ্ন করেন তুরস্কে শরিয়া আইন নেই কেন? তুরস্ক ইজরাইলকে আক্রমণ করে না কেন? তুরস্কে অবস্থিত আমেরিকার সামরিক ঘাঁটি বন্ধ করি না কেন? তুরস্ক কেন ন্যাটোর সদস্য। অনেকে বলেন তুরস্কের যতটুকু ভূমি ইউরোপের ভিতরে পড়েছে, ততটুকু ভূমি ইউরোপের কাছে বিক্রি করে দিলে তো অটোমেটিক তুরস্ক ন্যাটো থেকে বাদ পরবে। মুসলিমদের খুনি ন্যাটো জোটে এরদোগানের থাকা মুনাফিকি ছাড়া আর কিছুই নয়।

প্রিয় দ্বীনি ভাই, আপনার প্রতিটি উস্কানির উত্তর আমি দিবো সময় আসতে দিন। হয়তোবা আপনি ভুলে গেছেন যখন আমি বালক বয়সে বুকে কুরআন ধারণ করতাম, ইসলাম ধর্ম পালন করতাম। তখন গোটা সেকুলার সমাজ ও আতাতুর্কের সংবিধান আমাকে দমাতে পারেনি, আতঙ্কিত করতে পারেনি। আমার চাচা বলেছিল মাদ্রাসায় পড়ে হাফেজ হয়ে কি মরা মানুষের গোসল করিয়ে সংসার চালাবে?? চাচা আপনি দেখে যান, মাদ্রাসায় পড়ে বড় হয়ে আমি কি করে সংসার চালাচ্ছি। ওহে নাস্তিক আতাতুর্ক, সেদিন আমাকে দমাতে না পারার কারণে আজ তোমার সংবিধান হুমকির মুখে, সেদিন তোমার সংবিধান হিজাব পরার কারণে আমার মেয়েকে অনুষ্ঠানে ঢুকতে দেয়নি। আজ আমার লক্ষ মেয়ে হিজাব পড়ে অনুষ্ঠানে ঢুকে। সেদিনের আমি, আর আজকের আমি এক জিনিস নই। তোমার সংবিধান হাড়ে হাড়ে টের পাচ্ছে।

প্রিয় দ্বীনি ভাই, আজকে আপনারা যারা আমাকে উস্কানি দিয়ে হত্যা করতে চান, সারা পৃথিবীর অমুসলিমদের আমাকে একা ধ্বংস করতে বলেন। আপনাদের কথা না শুনলে আমাকে মোনাফেক বলেন। আপনারা এসব কেন বলেন??? তাহা কিন্তু আমি বুঝি।
আপনারা কি আমাকে মুরসির মতো আবেগী ভাবছেন??? আপনাদের মত কিছু ফেরেশতার উস্কানিতে মুরসি ইসরাইলের বিরুদ্ধে হুংকার দিয়েছিল…….???

আপনি এরদোগান কে উস্কানি দিবেন না। আপনার মত শত শত ফেরেশতা দাবিদার উস্কানিদাতা কে এরদোগানের কাছে মূল্যহীন, ডাস্টবিনে ছুড়ে ফেলে দেয়। আপনার স্থান ডাস্টবিনের পঁচা দুর্গন্ধের সাথে, এরদোগানের ভুল ধরার জন্য নয়
আর যারা এরদোগান কে ভালোবাসেন, তারা এরদোগানের সময় উপযোগী পদক্ষেপ এবং কৌশলের উপর আস্থা রাখুন। মনে রাখবেন, তুরস্কে কোন খনিজ সম্পদ নেই, বিভিন্ন দেশের সাথে ব্যবসা করে এরদোগান টিকে আছে। তাও আবার মিশরের প্রথম নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট এবং কোরআনের হাফেজ মুরসির বিরুদ্ধে যেসব দেশ সামরিক অভ্যুত্থান করেছে, সেই সব দেশগুলোর সাথে ব্যবসা বাণিজ্য করেন না। এরদোগানের সব থেকে বড় সম্পদ হচ্ছে কৌশল। কৌশলের মাধ্যমে কার্যসিদ্ধি করে আল্লাহর সৈনিক এরদোগান সারা বিশ্বের মজলুম মুসলিমদের সাহায্য করছেন।
অতএব এরদোগানের সমালোচনা নয়, শুধু দোয়া আর দোয়া চাই। সবাই মন থেকে বলি ইয়া আল্লাহ হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের ভক্ত তুমি তোমার সৈনিক এরদোগান কে সাফল্য এবং বরকত দিয়ে পরিপূর্ণ করে দাও আমিন।
রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ান।

Comments

comments

Close