আজ: ২০শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, বুধবার, ৪ঠা কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৪ই রবিউল আউয়াল, ১৪৪৩ হিজরি, রাত ১২:৪৩
সর্বশেষ সংবাদ
চটগ্রাম বিভাগ, প্রধান সংবাদ চট্টগ্রামে দুদকের অনুসন্ধানে কয়েক পুলিশ কর্মকর্তার অবৈধ সম্পদের খোঁজ

চট্টগ্রামে দুদকের অনুসন্ধানে কয়েক পুলিশ কর্মকর্তার অবৈধ সম্পদের খোঁজ


পোস্ট করেছেন: মতপ্রকাশ ডেস্ক | প্রকাশিত হয়েছে: ০৭/১০/২০২১ , ২:৪৫ পূর্বাহ্ণ | বিভাগ: চটগ্রাম বিভাগ,প্রধান সংবাদ


চট্টগ্রামে সংবাদদাতা: চট্টগ্রামে দায়িত্ব পালন করা কয়েকজন পুলিশ কর্মকতার কোটি কোটি টাকার অবৈধ সম্পদের সন্ধান পেয়েছে দুদক। যারা নামে-বেনামে গড়েছেন অঢেল সম্পত্তি। এ ব্যাপারে তদন্ত এখনও চলছে। নাগরিক সমাজের প্রতিনিধিরা বলছেন, দ্রুত তদন্ত শেষ করে দুর্নীতির জন্য দায়ি কর্মকর্তাদের বিচারের মুখোমুখি করা হলে পুলিশ বাহিনী পাবে সঠিক দিক নির্দেশনা, প্রতিষ্ঠিত হবে সুশাসন।

দীর্ঘ ১৬ বছর চট্টগ্রামে পুলিশের বিভিন্ন বিভাগ ও থানায় দায়িত্ব পালন শেষে এখন চুয়াডাঙ্গা থানার ওসি’র দায়িত্বে রয়েছেন পুলিশের পরিদর্শক মোহাম্মদ মহসীন। তার সম্পত্তির খোঁজ করতে গিয়ে চাঞ্চল্যকর সব তথ্য পেয়েছে দুদক। ঢাকা ও চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে নিজের ও স্ত্রীর নামে যিনি গড়ে তুলেছেন অঢেল সম্পদ।

দুদক সূত্রে জানা যায়, মোহাম্মদ মহসীনের নিজের নামে ঢাকা, চট্টগ্রাম ও গোপালগঞ্জে ১৫টি প্লট, ৫০ লাখ টাকার সঞ্চয়পত্র ও স্থাবর-অস্থাবর সম্পদ সহ মোট প্রায় ২ কোটি টাকার সম্পদ রয়েছে। তার স্ত্রীর নামে রয়েছে ঢাকা ও চট্টগ্রামে জায়গা, ব্যবসা, মৎস্য খামার, নির্মাণাধীন ৩তলা বাড়িসহ স্থাবর-অস্থাবর ২ কোটি ১৩ লাখ টাকার সম্পদ। দু’দকের প্রাথমিক অনুসন্ধানে জানা গেছে, ওসি মহসিনের জ্ঞাত আয় বহির্ভূত অর্জন ৭৫ লাখ টাকা ও তার স্ত্রী’র ৭৩ লাখ টাকা। মহসীনের আয়কর নথিতে দেখানো জাতিসংঘ মিশন হতে প্রাপ্ত অর্থের পরিমাণও সঠিক নয় বলে ধারণা দুদকের।

চট্টগ্রাম ট্রাফিক পুলিশের সাবেক টিআই মীর নজরুল ইসলামের সম্পদের অনুসন্ধানেও বেরিয়ে এসেছে অঢেল সম্পদের তথ্য। নিজের ও স্ত্রীর নামে ঢাকার মিরপুর এবং চট্টগ্রাম ও টাঙ্গাইলে গড়েছেন অনেক সম্পদ। বন্দরনগরীর লালখান বাজারে রয়েছে ফ্ল্যাট।

দু’দকের অনুসন্ধানে আরও জানা গেছে, সিএমপি ট্রাফিক শাখার সাবেক পরিদর্শক আবুল কাশেম বন্দরনগরীর ফইল্ল্যাতলী বাজারের চুনা ফ্যাক্টরি মোড় এলাকায় নির্মাণ করেছেন ৭তলা অট্টালিকা। এছাড়া হালিশহরের বসুন্ধরা আবাসিকে ফ্ল্যাট, ঢাকার বাড্ডায় জমি, চট্টগ্রামের সীতাকুন্ডে গরুর ফার্ম ও ফেনী সহ নানা জায়গায় গড়েছেন অঢেল সম্পত্তি। সরকারি-বেসরকারি ৬টি ব্যাংকে মিলেছে বড় অংকের লেনদেনের প্রমাণ।

চট্টগ্রাম পুলিশের আরেক সাবেক পরিদর্শক শাহাদাত হোসেন বন্দরনগরীর ফইল্ল্যাতলী বাজারের চুনা ফ্যাক্টরী মোড় এলাকায় গড়েছেন ৪ তলা বাড়ি ও ৫ তলা মার্কেটসহ বিভিন্ন সম্পত্তি।

সুশাসন প্রতিষ্ঠার জন্য এসব ব্যাপারে সঠিক তদন্ত শেষে দায়িদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির আওতায় আনার দাবি জানালেন বন্দরনগরীর নাগরিক সমাজের প্রতিনিধিরা।

তারা বললেন, এসব দুর্নীতির বিচার হলে সরকারের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল হওয়ার পাশাপাশি সুশাসনের ব্যাপরে জনমনেও আস্থা তৈরি হবে।

 

Comments

comments

Close
%d bloggers like this: