আজ: ২২শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, বুধবার, ৭ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৫ই সফর, ১৪৪৩ হিজরি, বিকাল ৫:৫৭
সর্বশেষ সংবাদ
খেলাধূলা ব্ল্যাক ক্যাপসদের আরো একটি কালো দিন, টানা দুই জয় টাইগারদের

ব্ল্যাক ক্যাপসদের আরো একটি কালো দিন, টানা দুই জয় টাইগারদের


পোস্ট করেছেন: মতপ্রকাশ অনলাইন | প্রকাশিত হয়েছে: ০৪/০৯/২০২১ , ২:২৮ পূর্বাহ্ণ | বিভাগ: খেলাধূলা


শামসুল আলম সবুজ :
মিরপুরে সিরিজের দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতে সফরকারী নিউজিল্যান্ডকে পরাজিত করে টানা দ্বিতীয় জয় তুলে নিয়েছে বাংলাদেশ। এদিনও বোলিং ব্যাটিং ফিল্ডিং তিন ডিপার্টমেন্টে দারুণ মুন্সিয়ানা দেখিয়েছে টাইগাররা। তাঁদের উজ্জীবিত পারফরম্যান্সে ব্ল্যাক ক্যাপসদের ৪ রানে হারিয়ে সিরিজে ২-০ ব্যবধানে এগিয়ে গেল মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের দল।
টসে জিতে ব্যাট করতে নামা টাইগার ওপেনাররা স্লো পিচে দারুণ ধৈর্যের পরিচয় দেন। বল ব্যাটে আসছিল না, নিচু হয়ে যাচ্ছিলো। এমন উইকেটে যে মেজাজে খেলা দরকার ঠিক তেমনটাই খেলেছেন নাইম এবং লিটন। পাওয়ার প্লেতে দেখেশুনে ৩৬ রান তুলেন তাঁরা। এই জুটি ৮.৪ ওভারে মহামূল্যবান ৫০ রান এনে দেয় দলকে। পঞ্চাশ পেরোনোর পর রানের গতি বাড়াতে মনোযোগ দেন তাঁরা। দশম ওভারের প্রথম বলে স্লগ সুইপে রাচিন রবীন্দ্রকে সীমানা ছাড়া করেন শূন্য রানে জীবন পাওয়া লিটন। এক বল পরেই লিটনকে(৩৩) বোল্ড করে প্রতিশোধ নেন এই স্পিনার, ভাঙ্গেন ৫৯ রানের ওপেনিং জুটি। পরের বলে মুশফিককে(০) স্ট্যাম্পিংয়ের ফাঁদে ফেলেন বাঁহাতি স্পিনার রবীন্দ্র।
সাকিব এসে ব্যাট চালাতে থাকেন, ৭ বলে দুই চারে ১২ রান করে সাজঘরের পথ ধরেন তিনি। একপ্রান্তে অবিচল নাইমকে সঙ্গ দেন অধিনায়ক রিয়াদ। তাঁদের ব্যাটে ১৪.৫ ওভারে বোর্ডে ১০০ রান জমা করে বাংলাদেশ। এরপর ৩৯ বলে ৩৯ রান করে ফিরে যান বাঁহাতি ওপেনার নাইম, তিনিও রবীন্দ্র’র স্পিনে কাঁটা পড়েন। আফিফ এসে টিকতে পারেননি বেশিক্ষণ। শেষদিকে, রিয়াদ এবং নুরুল হাসানের সুবাদে নিউজিল্যান্ডকে ১৪২ রানের লক্ষ্য ছুঁড়ে দেয় বাংলাদেশ। ৫ চারে ৩২ বলে ৩৭ রান করেন রিয়াদ, ১৩ রান আসে নুরুলের ব্যাট থেকে। কিউইদের হয়ে ৩ উইকেট নেন রাচিন রবীন্দ্র।
ধীরগতির উইকেটে টার্গেট তাড়া করতে নেমে মুখ থুবড়ে পড়ে ব্ল্যাক ক্যাপসরা। বাংলাদেশের স্পিনারদের সামলাতে দারুণ বেগ পেতে হয় সফরকারীদের। দলীয় ১৬ রানে সাকিবের স্পিনে বিভ্রান্ত হন কিউই ওপেনার রাচিন রবীন্দ্র। এর ২ রান পর আঘাত হানেন মেহেদি, তাঁর বলে টম ব্লান্ডলের উইকেট ভাঙ্গেন নুরুল হাসান সোহান। সেখান থেকে দলের হাল ধরেন টম লাথাম এবং উইল ইয়ং। ইয়ংকে সাইফুদ্দিনের ক্যাচে পরিণত করে তাঁদের ৪১ রানের পার্টনারশিপ ভেঙ্গে দেন সাকিব। ঠিক তখনই ক্রিজে নামেন অভিজ্ঞ কলিন ডি গ্রান্ডহোম। কিন্তু তাঁর অভিজ্ঞতা কোনো কাজে আসেনি। মাত্র ৮ রান করে নাসুম আহমেদের বলে মুশফিককে ক্যাচ দেন তিনি।
এরপর নিকোলসকে ফেরান মেহেদি। সতীর্থদের আসা যাওয়া দাঁড়িয়ে দেখতে থাকেন কিউই অধিনায়ক টম লাথাম। মুস্তাফিজকে বাউন্ডারি ছাড়া করে মাত্র ৩৮ বলে ফিফটি তুলে নেন নিউজিল্যান্ড দলপতি। সেখান থেকে ম্যাককনকিকে নিয়ে দলকে আশা দেন লাথাম। এই জুটি শেষ ওভারে খেলা নিয়ে যায়। ২০ তম ওভারে জয়ের জন্য কিউইদের দরকার ২০ রান, বল করতে আসেন কাটার মাস্টার মুস্তাফিজ। তাঁর করা প্রথম বল থেকে ৩ রান নেন ম্যাককনকি। পরের তিন বলে আরো ৪ রান তোলে কিউইরা। ম্যাচ মোটামুটি বাংলাদেশের হাতের মুঠোয় চলে আসে, ঠিক তখনই নো বল করেন ফিজ। সেই বলে বাউন্ডারি হাঁকান লাথাম। জিততে হলে শেষ দুই বলে ৮ রান তুলতে হবে সফরকারীদের। তবে আর ভুল করেননি মুস্তাফিজ। পঞ্চম বল কোনোমতে পায়ে লাগিয়ে দুই রান নেন লাথাম। ম্যাচ তখনও পেন্ডুলামের মতো ঝুলছে, শেষ বলটি মুস্তাফিজ করেন গুড লেংথে অফস্ট্যাম্পের বাইরে। লাথাম ব্যাট চালালে বল চলে যায় ডিপ মিড উইকেটে, ১ রান নিতে সক্ষম হয় নিউজিল্যান্ড। আর ৪ রানের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে টাইগাররা।
বাংলাদেশের হয়ে দুইটি করে উইকেট নিয়েছেন মেহেদি এবং সাকিব। ম্যাচসেরার পুরস্কার জিতেছেন ৩৭ রানের অনবদ্য ইনিংস খেলা টাইগার দলপতি মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ।

Comments

comments

Close
%d bloggers like this: