আজ: ১৬ই জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, বুধবার, ২রা আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ৬ই জিলকদ, ১৪৪২ হিজরি, রাত ১:৪৬
সর্বশেষ সংবাদ
জেলা সংবাদ ব্রাহ্মণবাড়িয়া বিশ্বরোড-সরাইল-নাসিরনগর-মোড়াকরি সড়কে সিএনজির ভাড়া নৈরাজ্য চরমে

ব্রাহ্মণবাড়িয়া বিশ্বরোড-সরাইল-নাসিরনগর-মোড়াকরি সড়কে সিএনজির ভাড়া নৈরাজ্য চরমে


পোস্ট করেছেন: মতপ্রকাশ অনলাইন | প্রকাশিত হয়েছে: ১৪/০৫/২০২১ , ১১:১৩ অপরাহ্ণ | বিভাগ: জেলা সংবাদ


লাখাই (হবিগঞ্জ প্রতিনিধি): ঈদ কিংবা বিশেষ দিনে অথবা যে কোন বড় উৎসবে সিএনজি চালকদের বিরুদ্ধে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের অভিযোগ উঠেছে। ব্রাহ্মণবাড়িয়া বিশ্বরোড-সরাইল-নাসিরনগর-মোড়াকরি সড়কে  সিএনজি চালকদের এসব ভাড়া নৈরাজ্যের কারনে যাত্রীরা এখন অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে। তাদের হাতে এখন জিম্মি হয়ে পড়েছে যাত্রী সাধারণ। দিন-দিন চালকরা তাদের ইচ্ছেমতো ভাড়া বৃদ্ধি করছে। কোন নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা না করেই ওই রোডে নৈরাজ্য চালিয়ে যাচ্ছে সিএনজি চালকরা। একইভাবে মোড়াকরি-বামৈ-লাখাই সড়ক পথেও অতিরিক্ত সিএনজি ও টমটম ভাড়া আদায়ের অভিযোগ উঠেছে।

সড়ক পথে যাত্রীরা এখন চালকদের কাছে অসহায়। প্রশাসনের নজরদারী না থাকার কারনেই চালকরা ইচ্ছে মতো ভাড়া আদায়ে বেপরোয়া হয়ে উঠেছে বলে অনেকেই মনে করছেন। স্থানীয় যাত্রী সাধারনের দাবী, সড়কের দূরত্ব অনুযায়ী সরকারি ভাবে ভাড়ার একটি নির্ধারিত তালিকা প্রতিটি ষ্ট্যান্ডে সাঁটিয়ে রাখা অতীব জরুরী।

ভাড়ার নির্ধারিত তালিকা থাকলে যাত্রীরা অতিরিক্ত ভাড়া থেকে মুক্ত হতে পারবে। জানা যায়, কতিপয় টমটম-অটোরিক্সা-সিএনজি পরিবহন শ্রমিক নেতাদের সহযোগিতায় এসব সড়ক পথে মাত্রাতিরিক্ত ভাড়া আদায় হচ্ছে। ওই সড়ক পথে বর্তমানে সহস্রাধিক সিএনজি চালিত অটোরিক্সা নিয়মিত চলাচল করছে। ভাড়া সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে চালকদের সাথে যাত্রীদের প্রায়ই বাক-বিতন্ডার ঘটনা ঘটতে দেখা গেছে।

কোন-কোন সময় চালকরা ভাড়া আদায়ে যাত্রীদের লাঞ্চিত করতেও পিছপা হচ্ছেনা। বিগত কয়েক বছরে ব্রাহ্মণবাড়িয়া বিশ্বরোড থেকে মোড়াকরি প্রায় ২৫ কিলোমিটার সড়কের ভাড়া কয়েক ধাপে বৃদ্ধি করা হয়। প্রতি সিএনজিতে ৫ জন যাএী বহন করা হয়। জনপ্রতি ভাড়া ৭০ টাকা। কিন্তু ঈদুল ফিতর আসার আগেই এ উপলক্ষে ভাড়া বৃদ্ধি করে জনপ্রতি ১০০ টাকা করে আদায় করা হচ্ছে। প্রতিটি সিএনজিতে পাঁচ জন করে যাএী তোলা হয়, তাহলে ২৫ কিলোমিটারের ভাড়া দাঁড়ালো ৫০০ টাকা। এছাড়া সন্ধ্যার পর বিভিন্ন অজুহাত দেখিয়ে এসব সড়ক পথে যাত্রীদের অনেকটা জিম্মি করেই চালকরা আরো বেশী ভাড়া আদায় করে নিচ্ছে। বিগত সময়ে যাত্রী হয়রানী ও ভাড়া কমানোর দাবীতে যাএীরা প্রতিবাদ করলেও সিএনজি চালকদের শক্তিশালী সিন্ডিকেটের কারনে কোন লাভ হয়নি। তাদের নিয়ন্ত্রনে কেউ কোন পদক্ষেপ নিচ্ছে না। ভাড়া বেশি হওয়া সত্ত্বেও নিরুপায় হয়ে যাত্রীরা উঠছে সিএনজিতে। কারণ তাদের গন্তব্যস্থলে যাওয়ার বিকল্প কোনো ব্যবস্থা নেই।

অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করার কারন সিএনজি চালকদের কাছে জানতে চাইলে তারা রাস্তায় খরচ দেওয়া লাগে বলে অযুহাত দেখান। অথচ জানা যায়, তাদের খরচ বাবদ স্ট্যান্ডে মাএ ২০ টাকা দিতে হয় প্রতি ট্রিপে। আর মোড়াকরি বলভদ্র সেতুতে টোল বাবদ দিতে হয় ১০ টাকা।

সরেজমিনে দেখা যায়, কোনো সিএনজি চালক কম ভাড়ায় যেতে চাইলেও অন্যসব সিএনজি চালকরা এসে সিন্ডিকেট করে সেই চালককে বাধা দেয়, যেতে দেয়না। অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করার ব্যাপারে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন সাধারন  যাত্রীরা ।

Comments

comments

Close
%d bloggers like this: