আজ: ২৪শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, শনিবার, ১১ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ, ১৪ই শাবান, ১৪৪৫ হিজরি, বিকাল ৩:০২
সর্বশেষ সংবাদ
জেলা সংবাদ বর্জ্য থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদনের প্রস্তাব চসিককে

বর্জ্য থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদনের প্রস্তাব চসিককে


পোস্ট করেছেন: অনলাইন ডেক্স | প্রকাশিত হয়েছে: ১৭/১১/২০২০ , ৭:২২ অপরাহ্ণ | বিভাগ: জেলা সংবাদ


চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের প্রশাসক আলহাজ্ব মোহাম্মদ খোরশেদ আলম সুজনের সাথে বর্জ্য থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদনের প্রস্তাব নিয়ে সোলার্স পাওয়ার লিমিটেডের অঙ্গ সংগঠন এনডিওরিং এনার্জির তিন সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল আজ মঙ্গলবার বিকেলে নগরীর টাইগারপাস বাটালী হিলস্থ সিটি কর্পোরেশন অফিসে তাঁর দপ্তরে স্বাক্ষাত করতে আসেন।
স্বাক্ষাতকালে কর্পোরেশনের প্রধান নির্বহী কর্মকর্তা কাজী মুহাম্মদ মোজাম্মেল হক, সচিব মুহাম্মদ আবু সাহেদ চৌধুরী, প্রধান প্রকৌশলী লে. কর্নেল সোহেল আহমেদ, প্রশাসকের একান্ত সচিব মুহাম্মদ আবুল হাশেম, এনডিরিং এনার্জির ব্যবস্থাপনা পরিচালক খন্দকার নুর-এ আলম, উপদেষ্টা মজুমদার দুলাল চন্দ্র, পরিচালক মো. দীন ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।
অনুষ্ঠানে এনডিওরিং এনার্জির ব্যবস্থাপনা পরিচালক খন্দকার নু-এ আলম তাদের প্রকল্পের একটি প্রতিবেদন কর্পোরেশনের প্রশাসকের নিকট উপস্থাপন করেন। পরে এই প্রকল্প নিয়ে এনডিওরিং এনার্জির সাথে কর্পোরেশনের কর্মকর্তাদের বিশদ আলোচনা হয়। আলোচনায় এনডিওরিং এনার্জি চট্টগ্রাম নগরীর বর্জ্য সংরক্ষণের একটি খ- চিত্র অনুষ্ঠানে উপস্থিত সকলের সামনে উপস্থাপন করা হয়।
এ সময় তারা জানান বিভিন্ন জাতীয় দৈনিকের সংবাদ অনুসারে চট্টগ্রামের প্রাণ কর্ণফুলী নদীর তলদেশে বর্তমানে ৭ফুট পলিথিন জমা আছে। যা পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর। তারা উল্লেখ করেন বাংলাদেশে ২০১৮-১৯ সালে প্রয়োজনের চাইতে ৫৮ শতাংশ বেশি বিদ্যুৎ উপৎপাদিত হয়। তাই আমাদের এই প্রকল্পের মূল উদ্দেশ্য বিদ্যুৎ উৎপাদন নয়। উদ্দেশ্য হলো আবর্জনা থেকে মুক্তি। তারা তাদের সলিড় রিকোভারড ফুয়েল (এস আর এফ) পদ্ধতিতে বর্জ্য থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদনের সুবিধা ও এজন্য কি পরিমান জায়গা প্রয়োজন তা চসিকের প্রশাসকের বরাবরে উপস্থাপন করেন।
এনডিওরিং এনার্জি জানান তাদের প্রকল্পের জন্য মোট ৩০ একর জায়গা ও প্রতিদিন আড়াই হাজার টন বর্জ্য প্রয়োজন হবে। তারা আরো উল্লেখ করেন এস আর এফ পদ্ধতিতে কয়লা থেকে ফুয়েলের মাধ্যমে বিদ্যুৎ উৎপাদনে৩০ শতাংশ কার্বন, ৮৫ শতাংশ নাইট্রোজেন, ৯০ শতাংশ সালফার, ৫০ শতাংশ ক্লোরিন নিঃসরন করে কয়লার চাইতে পানির মাধ্যমে ৪০ শতাংশ সমন্বয় সাধন করা যাবে। যা পরিবেশর জন উপযোগী। তাদের এই প্রকল্পের প্রস্তাব প্রশাসক খোরশেদ আলম সুজন অবগত হয়ে মন্ত্রণালয়ের অনুমোদনের পর চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়া হবে বলে উল্লেখ করেন।

Comments

comments