আজ: ১৪ই জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, সোমবার, ৩১শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ৪ঠা জিলকদ, ১৪৪২ হিজরি, রাত ৯:২৬
সর্বশেষ সংবাদ
জীবন ধারা, স্বাস্থ্য সুস্থ থেকে ওজন কমাতে ভরসা রাখুন এই খাবারে!

সুস্থ থেকে ওজন কমাতে ভরসা রাখুন এই খাবারে!


পোস্ট করেছেন: মতপ্রকাশ ডেস্ক | প্রকাশিত হয়েছে: ১২/১১/২০২০ , ১০:৫৫ পূর্বাহ্ণ | বিভাগ: জীবন ধারা,স্বাস্থ্য


ওবেসিটি, থাইরয়েড, ডায়াবিটিস কিংবা কোলেস্টেরলের চোখ রাঙানি- এ সবের সঙ্গে লড়তে গেলে কেবল শরীরচর্চাই একমাত্র সমাধান নয়। শরীরের প্রয়োজন অনুযায়ী জল খাওয়া আর সেই সঙ্গে খাবারদাবারে নজর দেওয়াও সমান গুরুত্বপূর্ণ।
ডায়েট মেনে বা খুব নিয়ম অনুযায়ী খাওয়াদাওয়া করার সুযোগ ঘটে না অনেকেরই। তবু একটু সচেতন হলে ওজন বাড়াতে পারে এমন সব খাবার পাত থেকে সহজেই বাদ দেওয়া যায়। বরং তার জায়গায় নিয়ে আসুন স্বাস্থ্যকর কিছু খাবারদাবার। প্রতি দিনের ব্রেকফাস্ট থেকে ডিনার পর্যন্ত নানা ধাপে এই সব খাবার পাতে যোগ করলেই সুফল পাবেন অনেকটা। সঙ্গে একটু হাঁটাহাঁটি ও পর্যাপ্ত জলেই কমবে ওজন। দূরে থাকবে অনিয়ন্ত্রিত জীবনযাপনের ফলে হওয়া নানা অসুখবিসুখ। মেদ কমাতে বা পেশী শক্তি চট করে কমিয়ে ফেলতে পারে, এমন কোনও নির্দিষ্ট খাদ্যবাস্তু নেই। এ ক্ষেত্রে ডায়েট পরিকল্পনা হয়ে ওঠে গুরুত্বপূর্ণ। তা-ও আবার সামগ্রিক ভাবে। আবার ডায়েটের মাধ্যমে শরীরের একাংশের মেদ কম করাও কিন্তু সম্ভব নয়। তবে এমন কিছু খাবার আছে, যা সুস্থ ওজন বজায় রাখতে সাহায্য করে এবং দীর্ঘ সময়ের জন্য ক্ষিদে নিয়ন্ত্রণেও কার্যকরী ভূমিকা গ্রহণ করতে পারে। এখানে এমনই কয়েকটি খাবারের হদিশ দেওয়া রইল।
ডিম- প্রোটিনে সমৃদ্ধ ডিম শুধু পেটই ভরায় না, বরং ওজন কমাতেও সাহায্য করে। একটি বড় শক্ত-সেদ্ধ ডিমে ক্যালরির মাত্রা ১০০-রও কম। প্রাতঃরাশের পাতে একটি ডিম আপনার সারাদিনের এনার্জি নিশ্চিত করতে পারে। ব্রেকফাস্ট মেনুতে পারফেক্ট হল ডিম। অফিসের তাড়াহুড়োতে যদি ব্রেকফাস্ট করার সময় না থাকে, তাহলেও চটজলদি একটা ডিম সেদ্ধ করে আপনি খেয়ে নিতে পারবেন। জিংক, ম্য়াগনেসিয়াম, আয়রন এবং সমস্ত রকম প্রোটিনে ভরপুর ডিম খেয়ে দিনের শুরুটা করলে সারাদিন আপনার এনার্জি লেভেল বজায় থাকবে। এছাড়া ডিম বেশিক্ষণ পেট ভরিয়ে রাখতে সাহায্য করে। তাই চট করে অন্য কিছু খাওয়ার ইচ্ছে হবে না। অতিরিক্ত কিছু না খাওয়ার ফলে আপনি ক্যালরি বার্ন করাতে পারবেন।
স্যালাড- ক্যালরি গুণে গুণে প্রত্যেকটি গ্রাস মুখে তোলার স্বভাব থাকলে, স্যালাডকে খাদ্য তালিকায় রাখতেই হয়। অধিকাংশ সবজি ও ফল ফাইবারে সমৃদ্ধ, যা শুধু পেটই ভরায় না, বরং মেদ ঝরাতেও সাহায্য করে। বাড়তি ওজন কমানোর জন্য অনেক চেষ্টা করে থাকেন সবাই। কিন্তু ওজন এমনই নাছোড়বান্দা যে সহজে পিছু ছাড়তে চায় না। ডায়েট, ব্যায়াম সব কিছু দিয়ে চেষ্টা করেও ওজন কমানো সম্ভব হয় না। তার ওপর যারা একটু ভোজনরসিক তাদের জন্য ডায়েটিং বেশিদিন ধরে রাখাও কষ্টকর। এই সমস্যা সমাধান করে দেবে স্যালাড৷ অনেকের দুপুরবেলা বেশি খাওয়া হয়ে যায়। যার ফলে ওজন কমার বদলে বাড়তে থাকে। তাদের জন্য রইল দুপুর বেলার এক সুস্বাদু স্যালাড। এই স্যালাড ভোজনরসিকদের মনকে শান্ত রাখবে এবং পাশাপাশি ওজনও কমাবে। স্যালাডটাকে যদি বেশ মজাদার করে তোলা যায় তবে তা খেয়ে ডায়েট করা বেশি সহজ মনে হয়। তাই আজ আপনাদের জন্য রইল ৩ বেলার ৩টি সুস্বাদু এবং স্বাস্থ্যকর স্যালাড, যা দ্রুত ওজন কমাতে সাহায্য করবে।
চিয়া বিজ- আসলে চিয়া বীজের জন্ম সুদূর মেক্সিকোতে। স্থানীয় Salvia hispanica নামক mint প্রজাতির গাছের বীজ এটি, তাই এর কোনও ভারতীয় নাম নেই, এটি চিয়া বীজ নামেই প্রচলিত। ছোট, সাদা, ধূসর, বাদামী ও কালো রঙের এই বীজটি পুষ্টিগুণে ভরপুর এবং এর অনেক উপকারিতা আছে। এতে রয়েছে ওমেগা-৩ জাতীয় ফ্যাটি অ্যাসিড যে কারণে এটি হার্টের পক্ষে খুব ভালো। এটি আমাদের রক্তে HDL cholesterol বাড়ায় যা শরীরের জন্য ভালো। এছাড়াও প্রচুর পরিমাণে রয়েছে প্রোটিন ও ফাইবার। রয়েছে আয়রন এবং ক্যালসিয়ামও।
ওজন কমানোর জন্য এই বিজটি সম্প্রতি অত্যন্ত জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে। তবে শুধু শুধু চিয়া বিজ চিবোলে আখেরে কোনও লাভ হবে না। ফাইবারে পরিপূর্ণ এই বীজটি দীর্ঘ সময়ের জন্য শুধু পেটই ভরিয়ে রাখে না, বরং খিদে নিয়ন্ত্রণেও সাহায্য করে। এর গুণগুলিকে যথাযথ ভাবে কাজে লাগাতে চাইলে নিয়মিত একে গ্রহণ করা উচিত।
ডাল- ওজন কমাতে রাতে খান ডাল! শুনে নিশ্চয়ই অবাক হচ্ছেন? আজ্ঞে হ্যাঁ, চটজলদি ওজন কমানোর জন্য ডায়েটে তো কত কিছুই অদল-বদল করলেন। সাত সকালে উঠে নিশ্চয়ই ব্যায়ামও করেন, ওজন কমবে ভেবে? ওজন যদি কমাতে চান, তা হলে আপনার রাতের মেনুতে অন্যান্য খাবারের সঙ্গে রাখুন মুগের ডাল। একঘেয়ে লাগলেও একটু কষ্ট করে খান। একমাসে দেখবেন ভুঁড়ি কমছে। যথোপযুক্ত মাত্রায় ফলিক অ্যাসিড, আয়রন, পটাশিয়াম, থিয়ামিন ও ম্যাঙ্গানিজ থাকে ডালে। শুধু তাই নয় প্রোটিন ও ফাইবারেও সমৃদ্ধ থাকে ডাল। যা দক্ষতার সঙ্গে ক্ষিদে নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে। হার্ট অ্যাটাক থেকে শুরু করে ব্লাড সুগারের মাত্রা কমানো এবং ওজন কমানো ইত্যাদি অনেক উপকারেই কিন্তু এই ডাল দারুণ কাজ দেয় মুসুর ডাল।

Comments

comments

Close
%d bloggers like this: