আজ: ২৫শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ইং, মঙ্গলবার, ১২ই ফাল্গুন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ৩০শে জমাদিউস-সানি, ১৪৪১ হিজরী, রাত ১২:৩১
সর্বশেষ সংবাদ
জেলা সংবাদ বাঘায় হাসপাতালে স্ত্রীর লাশ ফেলে পালিয়ে স্বামীর আত্মহত্যাচেষ্টা

বাঘায় হাসপাতালে স্ত্রীর লাশ ফেলে পালিয়ে স্বামীর আত্মহত্যাচেষ্টা


পোস্ট করেছেন: মতপ্রকাশ ডেস্ক | প্রকাশিত হয়েছে: ১২/০১/২০২০ , ৭:১৬ অপরাহ্ণ | বিভাগ: জেলা সংবাদ


রাজশাহীর বাঘায় স্ত্রীর লাশ হাসপাতালে ফেলে পালিয়ে স্বামী বিষ পানে আত্মহত্যার চেষ্টা করেছে। তাকে উদ্ধার করে উপজেলা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

রোববার সকাল ১০টার দিকে ঘটনাটি ঘটে উপজেলার হিজলপল্লী গ্রামে।

জানা যায়, বাঘা উপজেলার হিজলপল্লী গ্রামের নজরুল ইসলামের ছেলে লিটন আলী (৩০) প্রায় ৭ মাস আগে ফরিদপুরের সালথা থানার কামাদিয়া গ্রামের ফারুক হোসেনের মেয়ে ফাল্গুনী খাতুনকে (২২) বিয়ে করে। বিয়ের পর তাদের সংসার ভালো চলছিল। হঠাৎ ফাল্গুনী খাতুনের মৃত্যু নিয়ে রহস্যের সৃষ্টি হয়েছে। এটি হত্যা না আত্মহত্যা। এ নিয়ে চলছে এলাকায় গুঞ্জন।

তবে ফাল্গুনী খাতুনের পরিবারের দাবি, তাকে হত্যা করে আত্মহত্যা বলে চালিয়ে দেয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে। এ দিকে তারা আরও দাবি করছে, এটা চাপা দেয়ার জন্য ফাল্গুনী খাতুনের লাশ হাসপাতালে রেখে পালিয়ে স্বামী লিটন আলী বিষ পানে আত্মহত্যার চেষ্টা করেছে।

এ বিষয়ে ফাল্গুনী খাতুনের শাশুড়ি বেজিজান বেগম জানান, বিয়ের পর থেকে তারা ভালো চলছিল। সংসারে কোনো অশান্তি নেই। তাদের মধ্যে সম্পর্কও ভালো। তারা দুইজনে মিলে শনিবার বাঘাবাজার থেকে একটি শোকেস কিনে আনে। কী হতে কি হয়ে গেল বুঝতে পারছি না।

তিনি বলেন, ফাল্গুনীর মৃত্যুর পরপর লাশ হাসপাতালে রেখে বাড়িতে গিয়ে আমার ছেলেও বিষপানে আত্মহত্যার চেষ্টা করেছে। তাকে উদ্ধার করে উপজেলা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এ বিষয়ে ফাল্গুনী খাতুনের পিতা ফারুক হোসেন বলেন, শনিবার জামাই আমাকে ফোন করে বলেন, আপনার মেয়েকে নিয়ে যান। উত্তরে বলি অনেক দূরে আছি, কালকে এসে মেয়েকে নিয়ে আসব। কিন্তু তার আগেই মেয়ে লাশ হয়ে গেল।

তিনি আরও জানান, আমার মেয়েকে তারা হত্যা করে আত্মহত্যা বলে চালিয়ে চেয়ার চেষ্টা করছে। তারা এটাকে চাপা দেয়ার জন্য মেয়ের লাশ হাসপাতালে রেখে পালিয়ে বিষপানে আত্মহত্যার চেষ্টা করছে।

বাঘা থানার ওসি নজরুল ইসলাম বলেন, ঘটনাটি জানার পর লাশ উদ্ধার করে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। তবে এটি হত্যা না আত্মহত্যা তা ময়নাতদন্তের পর জানা যাবে। তারপরও এ বিষয়ে তদন্ত শুরু করা হয়েছে।

Comments

comments

Close