আজ: ১২ই জুলাই, ২০২০ ইং, রবিবার, ২৮শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২১শে জিলক্বদ, ১৪৪১ হিজরী, দুপুর ১:৫৬
সর্বশেষ সংবাদ
জাতীয়, ঢাকা বিভাগ শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের শ্রদ্ধা জানাতে প্রস্তুত সাভারের জাতীয় স্মৃতিসৌধ

শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের শ্রদ্ধা জানাতে প্রস্তুত সাভারের জাতীয় স্মৃতিসৌধ


পোস্ট করেছেন: মতপ্রকাশ ডেস্ক | প্রকাশিত হয়েছে: ১৪/১২/২০১৯ , ১১:১৩ পূর্বাহ্ণ | বিভাগ: জাতীয়,ঢাকা বিভাগ


আবুল খায়ের ভুঁইয়া: 

১৬ ডিসেম্বর মহান বিজয় দিবস। লাখো শহীদের রক্তের বিনিময়ে অর্জিত এই দিনটি। টানা ৯ মাস রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের পর এসেছে এই স্বাধীনতা। বিজয়ের পর থেকেই এই দিনটি যথাযোগ্য মর্যাদায় উদযাপন করে আসছে পুরো দেশ। স্বাধীনতার স্বাদ নিতে ৩০ লক্ষ শহীদের তাজা রক্ত ঢেলে দিতে হয়েছে, এই স্বাদ নিতেই লক্ষ লক্ষ মায়েরা খালি করেছেন তাদের কোল ও বুক। সেই বীর শহীদদের শ্রদ্ধা জানাতে প্রায় গত ১ মাস ধরে জাতীয় স্মৃতিসৌধে সাজসজ্জা, বাহারি ফুল দিয়ে সাজিয়ে প্রস্তত করা হয়েছে। নেওয়া হয়েছে নিচ্ছিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থা।

১০৮ একর জমির ওপর দাঁড়িয়ে থাকা সাভারের এই জাতীয় স্মৃতিসৌধ বুকে ধারণ করে আছে লাল সবুজের ইতিহাস। মুক্তিযুদ্ধের সাক্ষী হিসেবে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে আছে এই স্মৃতিসৌধ। হালকা কুয়াশা ভেদ করে রক্তিম সূর্যোদয়ের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী, রাষ্ট্রপতিসহ সকল স্তরের মানুষ শহীদদের ফুল দিয়ে স্মরণ করবে।

স্মৃতিসৌধের পরিচ্ছন্নকর্মী রঙমালা  জানান, দীর্ঘ দিন ধরে এখানে তিনি কাজ করছেন। এখানে কাজ করে একদিকে যেমন অর্থনৈতিক সংকট দূর হয়, তেমনি বীর শহীদদের পাশে থাকা যায় বলে মনে করেন তিনি।

রং মিস্ত্রি আব্দুল জলিল বলেন, ‘আমরা রং তুলির কাজে নিয়োজিত আছি। প্রতিটা দিবসেই আমরা স্মৃতিসৌধে রংয়ের আঁচড়ে সৌন্দর্য বৃদ্ধির চেষ্টা করি। এখানে দেশি-বিদেশি কূটনৈতিকরা আসেন, প্রধানমন্ত্রী ও রাষ্ট্রপতি আসেন শ্রদ্ধা জানাতে। সবার কাছে সুন্দরভাবে স্মৃতিসৌধ উপস্থাপনের চেষ্টা করি আমরা।’

এ ব্যাপারে ঢাকা জেলা পুলিশ সুপার মারুফ হোসেন সরদার বলেন, স্বাধীনতা দিবসে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর আগমনকে কেন্দ্র করে আমিনবাজার থেকে জাতীয় স্মৃতিসৌধ পর্যন্ত ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। সর্বোচ্চ নিরাপত্তা দিতে র‍্যাব, পুলিশ ও সিভিল পোশাকের পুলিশের পাশাপাশি থাকবে স্ট্রাইকিং ফোর্স। সিসিটিভি ক্যামেরার নজরদারির আওতায় আনা হয়েছে গোটা স্মৃতিসৌধ চত্বর। এ ছাড়াও ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের উভয় পাশে আমিনবাজার থেকে নয়ারহাট পর্যন্ত সিসিটিভি ক্যামেরার মাধ্যমে মনিটরিং করা হচ্ছে। দিবসটি পালনের জন্য তিন বাহিনীর সুসজ্জিত দলের মহড়ার প্রস্তুতি প্রায় শেষ।

গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রী অ্যাডভোকেট শ ম রেজাউল করিম জানান, প্রবেশপথ থেকে শুরু করে স্মৃতিস্তম্ভ পর্যন্ত পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করা হয়েছে। নিরাপত্তার কারণে ৮ ডিসেম্বর থেকে ১৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত জনসাধারণের প্রবেশ নিষেধ করা হয়েছে। প্রায় ৯৫ শতাংশ প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য জাতীয় স্মৃতিসৌধ পুরোপুরি প্রস্তুত হয়েছে বলা যায়। ১৬ ডিসেম্বর ভোরে প্রধানমন্ত্রী ও রাষ্ট্রপতির শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত করে দেয়া হবে বলেও জানান তিনি।

Comments

comments

Close