আজ: ১৬ই আগস্ট, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, রবিবার, ১লা ভাদ্র, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৬শে জিলহজ, ১৪৪১ হিজরি, রাত ১২:০২
সর্বশেষ সংবাদ
জাতীয়, নারী ও শিশু, প্রধান সংবাদ নারীদের বাদ দিয়ে উন্নয়ন অসম্ভব: প্রধানমন্ত্রী

নারীদের বাদ দিয়ে উন্নয়ন অসম্ভব: প্রধানমন্ত্রী


পোস্ট করেছেন: মতপ্রকাশ ডেস্ক | প্রকাশিত হয়েছে: ০৯/১২/২০১৯ , ১:১৭ অপরাহ্ণ | বিভাগ: জাতীয়,নারী ও শিশু,প্রধান সংবাদ


প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আমাদের সমাজের অর্ধেক জনসংখ্যা হলো নারী। সেই নারীদের বাদ দিয়ে একটি সমাজের কাঙ্ক্ষিত উন্নয়ন অসম্ভব। বর্তমানে নারী-পুরুষ সমন্বিতভাবে কাজ করছে। নারীদের অধিকার প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে ও আরো এগিয়ে যাবে।

সোমবার (৯ ডিসেম্বর) সকালে রাজধানীতে ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে বেগম রোকেয়া দিবস উপলক্ষে পদক প্রদান অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বেগম রোকেয়া পদকের জন্য মনোনীতদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন। পদকপ্রাপ্তরা হলেন বেগম সেলিনা খালেক, অধ্যক্ষ শামসুন নাহার, ড. নুরুননাহার ফয়জননেসা, পাপড়ি বসু, বেগম আখতার জাহান।

প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, আমরাই প্রথম উপলব্ধি করেছি নারী শিক্ষার বাধ্যতামূলক করে দেয়া। এখন নারীরা পার্লামেন্টেও সুযোগ পাচ্ছে। আমরা নারী শিক্ষার অগ্রগতির জন্য ২ কোটি ৩ লাখ বৃত্তি এবং উপবৃত্তির ব্যবস্থা করেছি। এছাড়া সারাদেশে বাংলাদেশে কমিউনিটি ক্লিনিক করে দিয়েছি। সেখানে ট্রেনিং এর সুযোগ করে দিয়েছি। প্রত্যক জায়গায় আমরা মেয়েদের উৎসাহিত করছি। উদ্যোক্তা হিসেবে মেয়েদের সুবিধা দিচ্ছি।

বিভিন্ন সেক্টরে মেয়েদের অগ্রগতি উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমরা চাই মেয়েরা বিনিয়োগ সেক্টরে এগিয়ে আসুক। এখন বাংলাদেশের সব জায়গায় মেয়ের অবস্থান রয়েছে। পার্লামেন্টে সব জায়গায় মেয়েদের অবস্থান। ক্রীড়াঙ্গনে মেয়েরা ভালো করছেন। স্বর্ণ পেয়েছেন। এসএ গেমসে মেয়েরা স্বর্ণ জয় করেছে।

মেয়েদের জন্য সরকারের চালু করা বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধার কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, একটা সময় মেয়েদের খেলার সুযোগ ছিল না দেশে। আমরা প্রাথমিক পর্যায়ে বেগম ফজিলাতুন্নেছা মেয়েদের জন্য এবং ছেলেদের জন্য বঙ্গবন্ধু টুর্নামেন্ট চালু করেছি। শিক্ষা ক্ষেত্রে মেয়েদের অংশগ্রহণ চোখে পড়ার মতো। মেয়েরা এখন পড়াশোনায় খুব আগ্রহী।

সমাজে এক ধরণের পরিবর্তন এসে গেছে। এরই মধ্যে আমরা একটা লিগ্যাল এইড ফান্ড করে দিয়েছি, যা দিয়ে মেয়েরা আইনী বিষয়ের সহযোগিতাও পাবে। আমরা বাল্যবিবাহ নিরোধ আইন পাশ করেছি। জনসচেতনা সৃষ্টি হচ্ছে। মেয়েদের মাতৃকালীন ছুটি ছয় মাস করে দিয়েছি। মাতৃকালীন ভাতা দেওয়ার চেষ্টা করছি। গার্মেন্টস কর্মজীবী মেয়েদের জন্য ডরমেটরি করে দিচ্ছি।

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, বেগম রোকেয়া নারীদের নিয়ে যে স্বপ্ন দেখেছিলেন সেই স্বপ্ন বাস্তবায়ন করছি। নারীরা একদিন লেখাপড়া শিখে জজ, ব্যারিস্টার হবে। বেগম রোকেয়ার এই স্বপ্ন এখন বাস্তব। নারীরা শুধু জজ-ব্যারিস্টার নয় এখন সব জায়গাতেই নারী দক্ষতার সঙ্গে কাজ করছে। বেগম রোকেয়ার আদর্শ ধারণ করে জাতির পিতার স্বপ্ন বাস্তবায়নে আমাদের কাজ করে যেতে হবে।

Comments

comments

Close