আজ: ১৮ই অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, সোমবার, ২রা কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১২ই রবিউল আউয়াল, ১৪৪৩ হিজরি, দুপুর ১:৪৫
সর্বশেষ সংবাদ
জেলা সংবাদ, রাজশাহী বিভাগ বাঘায় প্রধান শিক্ষক নিয়োগে অনিয়মের অভিযোগ: ১৪ জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে মামলা

বাঘায় প্রধান শিক্ষক নিয়োগে অনিয়মের অভিযোগ: ১৪ জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে মামলা


পোস্ট করেছেন: মতপ্রকাশ ডেস্ক | প্রকাশিত হয়েছে: ২৮/১০/২০১৯ , ৯:১৪ অপরাহ্ণ | বিভাগ: জেলা সংবাদ,রাজশাহী বিভাগ


বাঘা (রাজশাহী) প্রতিনিধি : রাজশাহির বাঘা উপজেলায় ইসলামি একাডেমি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নিয়োগে অনিয়মের অভিযোগে আদালতে মামলা করেছেন স্থানিয় এক ব্যাক্তি। রাজশাহীর বিজ্ঞ সহকারী জজ আদালতে দায়ের করা মামলাটিতে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালকসহ মোট ১৪ জনকে অভিযুক্ত করা হয়েছে।

অভিযুক্ত ব্যক্তিরা হলেন বিদ্যালয় পরিচালনা পরিষদের সভাপতি আবু বক্কর সিদ্দিক, নিয়োগ প্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক আব্দুল হামিদ, বিদ্যালয় পরিদর্শক, অভিভাবক সদস্য ও শিক্ষক প্রতিনিধিসহ ১৪জন ।

মামলার এজাহারে বাদি উল্লেখ করেন, বাঘা ইসলামি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল কাদের অবসরে গেলে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের পদটি শূন্য হয় । পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি আবু বাক্কার সিদ্দিক ৫ মার্চ ২০১৯ তারিখে নামমাত্র দুই একটি দৈনিক পত্রিকায় প্রধান শিক্ষক নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি দেন। নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত হলে চারজন আবেদন করেন। সেই আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে বিদ্যালয়টির পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি অন্যান্য সদস্যদের যোগসাজশ্যে বেসরকারি স্কুল-কলেজের নিয়োগ নীতিমালা উপেক্ষা করে প্রধান শিক্ষকের শূন্য পদে তড়িঘড়ি করে নিয়োগ কমিটি সম্পুর্ন করে অবৈধভাবে আব্দুল হামিদ কে নিয়োগ দেন।

এজাহারে আরও উল্লেখ করা হয়, বর্তমান কমিটির ম্যানেজিং ডিরেক্টর (পরিচালনা পর্ষদ) সভাপতি আবু বক্কর সিদ্দিক বাঘা সরকারি শাহদৌল্লা কলেজের নিয়োগপ্রাপ্ত প্রভাষক। তাঁর ইনডেক্স নাম্বার ৬১৬৪৮২।

কিন্তু শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী সরকারি বেসরকারি কোন প্রতিষ্ঠানে কর্মরত শিক্ষক-প্রভাষক কোন বিদ্যালয়ের পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি হতে পারবেন না। কিন্তু তিনি সরকারি কলেজের প্রভাষক হয়েও অবৈধভাবে প্রধান শিক্ষক নিয়োগ দিয়েছেন।

মামলার এজাহারে দাবি করা হয়, নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের পর নিয়োগ প্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের চেয়ে যোগ্যতা সম্পন্ন আরও প্রার্থীরা আবেদন করেছিলেন। কিন্তু তাদের নিয়োগ না দিয়ে কমিটি অবৈধভাবে আব্দুল হামিদ কে প্রধান শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ দিয়েছেন। এই নিয়োগ বাতিলের দাবি করেন বাদী।

বিদ্যালয় কমিটির সভাপতি মামলায় অভিযুক্ত আবু বাক্কার সিদ্দিকের সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘নিয়োগে কোনো অনিয়ম হয়নি। বিধি মোতাবেক নিয়োগ প্রকৃয়া সম্পন্ন হয়েছে। আমি ২০১৭ সালে পুর্নাঙ্গ নিয়ম মেনেই পরিচালনা কমিটির সভাপতি মনোনিত হয়েছি । স্থানীয় কিছু লোকের মদদে বাদি মামলা দায়ের করেছেন। যার কোন বৈধতা নেই।

এ বিষয়ে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার আরিফুর রহমান বলেন, প্রধান শিক্ষকের নিয়োগ বৈধভাবে নিতিমালা মেনেই সম্পুর্ন হয়েছে। তবে ইসলামি একাডেমি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়ার বিরুদ্ধে বিজ্ঞ আদালতে যে মামলা হয়েছে সে বিষয়ে আমি অবগত নই। আদালত কর্তৃক কোন নির্দেশনা আসলে সে মোতাবেক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

উল্লেখ্য গত ৯ অক্টোবর বিজ্ঞ বিজ্ঞ সহকারী জজ আদালতে মামলাটি দায়ের করেন উপজেলার ছাতারি এলাকার সাবেক ইউপি মেম্বার আব্দুল মজিদের ছেলে জুবাইদুল ইসলাম। মামলা নম্বর ৫১/২০১৯.

উপজেলা নির্বাহি অফিসার শাহিন রেজা বলেন, নিয়োগ প্রকৃয়ার ব্যাপারে আদালতে যে মামলা হয়েছে তা এইমাত্র অবগত হলাম। যেহেতু আদালতে মামলা দায়ের হয়েছে, সেহেতু আদালতেই বিষয়টির সুরাহা হবে।

Comments

comments

Close
%d bloggers like this: