আজ: ১৫ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং, শুক্রবার, ৩০শে কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৮ই রবিউল-আউয়াল, ১৪৪১ হিজরী, রাত ১১:৩৩
সর্বশেষ সংবাদ
প্রেস বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত সংবাদের বিপরীতে কাউন্সিলর নুরুল ইসলাম রতনের প্রতিবাদ

প্রকাশিত সংবাদের বিপরীতে কাউন্সিলর নুরুল ইসলাম রতনের প্রতিবাদ


পোস্ট করেছেন: মতপ্রকাশ ডেস্ক | প্রকাশিত হয়েছে: ১৯/১০/২০১৯ , ৭:৩০ অপরাহ্ণ | বিভাগ: প্রেস বিজ্ঞপ্তি


আমি আলহাজ নুরুল ইসলাম রতন , কাউন্সিলর ২৯ নং ওয়ার্ড (ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন) গত ১৬ অক্টোবর ২০১৯ ইং সনে দৈনিক দেশ রুপান্তর পত্রিকায় প্রকাশিত ‘মোহাম্মাদপুরের রাজীব সলু রতন গ্রেপ্তার আতঙ্কে’ শিরোনামে যে সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে তার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি । সংবাদে উল্লেখ করা হয়েছে আমি আত্মগোপনে রয়েছি , অথচ আমি নিয়মিত আমার কার্যালয়ে অফিস করছি । সংবাদে প্রতিবেদক উল্লেখ করেছেন যে , আমাকে আটকের জন্য আইন প্রয়োগকারী সংস্থা আমার বাসা ও অফিসে হানা দিয়ে আমাকে পায়নি , অথচ সেদিন আমার বাসায় স্থানীয় একটি সালিশের জন্য র‍্যাব সদস্যরা আমাকে অবগত করতে এসেছিলেন ।

সংবাদে আমাকে ভুমি দখলকারী হিসেবে উল্লেখ করা হলেও আমার ওয়ার্ডে কোন প্রাইভেট ল্যান্ড নেই , যা আছে তা গৃহায়ন অধিদপ্তরের আওতাভুক্ত এবং আমি ঢাকা উত্তর সিটির প্রয়াত মেয়র আনিসুল হকের তৎপরতায় সরকারী ভূমির দখল উচ্ছেদের জন্য যে কমিটি গঠন করা হয়েছিল তার সদস্য হিসেবে এখনো কাজ করছি । আমার মাধ্যমে ইতঃপূর্বে সরকারের অনেক খাস জমি দখল মুক্ত হয়েছে ।
আমার ওয়ার্ডে ৪০ বস্তি নামক একটি জায়গা রয়েছে যেখানে অবাধে মাদক ব্যবসা সহ অনৈতিক কাজ হয়ে আসছিল । এই জায়গাটি সরকারের এবং এটি দখল মুক্ত করার কাজে হাত দেয়ার পর থেকে আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র শুরু হয় । ৪০ বস্তি নামক জায়গাটি উদ্ধারে সিটি কর্পোরেশনের সাথে ২বছর ধরে মামলা চলছে এবং রায় আসন্ন বিধায় আবারো দখলদার ইয়াবা, মদ ও গাঁজা ব্যবসায়ী শহীদ , রোকেয়া , বাদশা , ভন্ড বাবুল নামীয় কিছু লোক আমার বিরুদ্ধে উস্কানি ছড়াচ্ছে ।
আমি নুরুল ইসলাম রতন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের একজন নিবেদিতপ্রাণ কর্মী যে কিনা ১৯৬৯ সাল হতে ছাত্রলীগের সাথে যুক্ত ছিলাম এবং শহীদ সোহরাওয়ারদী কলেজের এজিএস হিসেবে দায়িত্ব পালন করি । ১৯৯০ সালে তৎকালীন ৪২ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি হই , ১৯৯৪ থেকে ২০০৪ ইং সাল পর্যন্ত মোহাম্মাদপুর থানা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলাম এবং বর্তমানে ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সদস্য । আমি মনে করি একজন সৎ ও পরিচ্ছন্ন রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বের চরিত্রকে কালিমালিপ্ত করে একটি মহল ফায়দা লুটতেই আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা এ সংবাদ ছাপিয়েছে ।

বর্ণিত সংবাদে যা প্রকাশিত হয়েছে তা আদৌ সত্য নয়। প্রকৃতপক্ষে যাদের তথ্যের ওপর ভিত্তি করে সংবাদটি প্রকাশিত হয়েছে তারা গত কাউন্সিলর নির্বাচনে আমার বিপক্ষ সমর্থক ছিল। তাই রাজনীতিকভাবে তারা আমার সকল কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধাচরণ করছে। আমি ভূমি দখল , মাদক, ক্যাসিনো, জুয়া, চাঁদাবাজির বিরুদ্ধে সব সময় সোচ্চার ছিলাম, আছি ও থাকবো। এছাড়া আমি আমার নির্বাচনি এলাকায় উল্লেখিত অনৈতিক কার্যক্রমের কোনও তথ্য পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই স্থানীয় আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সহায়তায় তাদের আস্তানায় অভিযান চালিয়েছি, যা স্থানীয় আইন শৃঙ্খলা বাহিনী অবগত আছে। আমি বিশ্বাস করি দুটি সময়ে দুর্দিনের কর্মী ও জনপ্রিয় ব্যক্তিদের নামে কুৎসা রটানো হয় , এক হলো বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কাউন্সিল এবং দ্বিতীয়টি হলো নির্বাচন । সামনের দিন গুলোতে এদুটিই রয়েছে বিধায় আমার চরিত্রকে কালিমা লিপ্ত করার ষড়যন্ত্র চলছে । আমার বিপক্ষের লোকজন আমার বিরুদ্ধে জনগণের বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করতে মিথ্যা বানোয়াট তথ্য দিয়ে সামাজিকভাবে হেয় করার পাঁয়তারা চালাচ্ছে।’

Comments

comments

Close