আজ: ২২শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, বৃহস্পতিবার, ৯ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১০ই রমজান, ১৪৪২ হিজরি, রাত ১০:৪১
সর্বশেষ সংবাদ
আইন ও বিচার, প্রধান সংবাদ বিএনপি নেতা মেজর হাফিজের জামিন মঞ্জুর

বিএনপি নেতা মেজর হাফিজের জামিন মঞ্জুর


পোস্ট করেছেন: মতপ্রকাশ ডেস্ক | প্রকাশিত হয়েছে: ১৩/১০/২০১৯ , ৭:২৮ অপরাহ্ণ | বিভাগ: আইন ও বিচার,প্রধান সংবাদ


ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মেজর (অব.) হাফিজ উদ্দিন আহমেদের জামিন আবেদন মঞ্জুর করেছেন আদালত। আজ রোববার (১৩ অক্টোবর) তাকে ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতে হাজির করে পুলিশ। এ সময় সাত দিনের রিমান্ড আবেদন করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পল্লবী থানার উপ-পরিদর্শক নূরে আলম।

অপরদিকে তার আইনজীবীরা রিমান্ড বাতিল চেয়ে জামিন আবেদন করেন। শুনানি শেষে ১০ হাজার টাকা মুচলেকায় ঢাকা মহানগর হাকিম আতিকুল ইসলাম জামিন আবেদন মঞ্জুর করেন।

এর আগে শনিবার (১২ অক্টোবর) দুপুরে কর্নেল ইসহাক ও রাতে সিঙ্গাপুর থেকে দেশে ফেরার পর রাজধানীর হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে তাদের আটক করে র‌্যাব-৪। পরে র‌্যাবের মামলায় রাজধানীর পল্লবী থানায় তাদের সোপর্দ করা হয়। কর্নেল ইসহাক খালেদা জিয়ার নিরাপত্তা টিম সিএসএফের (চেয়ারপারসন্স সিকিউরিটি ফোর্স) প্রধান কর্মকর্তা। এদের মধ্যে শনিবার ঢাকা মহানগর হাকিম নিভানা খায়ের জেসি ইসহাকের সাতদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

পল্লবী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নজরুল ইসলাম বলেন, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ২৭, ৩১ ও ৩৫ ধারায় র‌্যাব-৪ এর এসআই (নিরস্ত্র) আবু সাঈদ একটি মামলা করেছেন। মামলা নম্বর ৪২। র‌্যাব-৪ রাতে আটক দুজনকে থানায় সোপর্দ করে। দায়ের করা ওই মামলায় পরে তাদের দুজনকেই গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে।

মামলার এজাহারে থেকে জানা যায়, শনিবার (১২ অক্টোবর) গোপন সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব জানতে পারে যে, গত ২ মে বেলা ১১টা ৫৭ মিনিটের দিকে কর্ণেল (অব.) মুহাম্মদ ইসহাক মিয়ান (৬৩) তার মিরপুরের বাসা থেকে তার ব্যক্তিগত ইমেইল ব্যবহার করে একটি খুদে বার্তা পাঠান। পরে কর্ণেল (অব.) মুহাম্মদ ইসহাক মিয়ানকে জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, এই কাজে মেজর হাফিজ উদ্দিন এবং ব্যারিস্টার এম সরোয়ার হোসেনসহ অনেকেই জড়িত রয়েছেন। বিষয়টি রাষ্ট্রের সার্বোভৌমত্বের জন্য হুমকি স্বরূপ বলে জানায় পুলিশ।

মামলার এজাহারে বলা হয়েছে,  ২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত ১১তম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রশাসন, গোয়েন্দা সংস্থা, র‌্যাব, পুলিশসহ অন্যান্য সরকারী সংস্থার ভূমিকা সম্পর্কে মিথ্যা, বিভ্রান্তিকর, বানোয়াট ও উদ্দেশ্যমূলক তথ্য ইমেইলে তিনি পাঠান। তার ওই কাজে দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণœ করে দেশের অভ্যন্তরীণ অস্থিরতা ও বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করে আইনশৃঙ্খলার অবনতি ঘটনানোর অপচেষ্টা করা হয়েছে। আসামির এমন কার্যকলাপ সামরিক বাহিনীতে অস্থিরতা ও বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করে দেশে অস্থিতিশীল পরিবেশ তৈরী করার হীন প্রচেষ্টা।

Comments

comments

Close
%d bloggers like this: