আজ: ২৩শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, শুক্রবার, ১০ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১১ই রমজান, ১৪৪২ হিজরি, দুপুর ২:১২
সর্বশেষ সংবাদ
জাতীয়, প্রধান সংবাদ জঙ্গিবাদের সাংগঠনিক কাঠামো ভেঙে দিয়েছি : মনিরুল

জঙ্গিবাদের সাংগঠনিক কাঠামো ভেঙে দিয়েছি : মনিরুল


পোস্ট করেছেন: মতপ্রকাশ ডেস্ক | প্রকাশিত হয়েছে: ০১/০৭/২০১৯ , ১:১১ অপরাহ্ণ | বিভাগ: জাতীয়,প্রধান সংবাদ


কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিটের প্রধান ও ডিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার মনিরুল ইসলাম বলেছেন, জঙ্গিবাদের যে সাংগঠনিক কাঠামো, তা আমরা বিভিন্ন অভিযানে ভেঙে দিয়েছি। তবে জঙ্গিদের আমরা দমন করতে পারলেও জঙ্গিবাদ মতাদর্শে বিশ্বাস করে কিংবা উগ্রবাদ বা জঙ্গিবাদে উদ্বুদ্ধ ব্যক্তি এখনো সমাজে বিদ্যমান। তারা অনুকূল পরিবেশ পেলে কিংবা কখনো সক্ষমতা অর্জন করে, ওই মতাদর্শে বিশ্বাসীদের কারণে ঝুঁকি থাকবে। সেই ঝুঁকির মাত্রা নির্ভর করে তাদের সক্ষমতার মাত্রার ওপর। আজ সোমবার (১ জুলাই) রাজধানীর গুলশানের হলি আর্টিজানে হামলার তিন বছর উপলক্ষে নিহতদের স্মরণে ফুলেল শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এসব কথা বলেন।

মনিরুল ইসলাম বলেন, ৩ বছর আগে আজকের এ দিনে হলি আর্টিজানে নৃশংস জঙ্গি হামলায় দুই পুলিশ সদস্যসহ ২২ জন নিহত হয়েছেন। প্রথমেই নিহতদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করছি এবং তাদের পরিবার সেই শোক কাটিয়ে উঠুক সে কামনা করছি।তিনি বলেন, এ হামলার সঙ্গে নব্য জেএমবির যারা জড়িত ছিলেন, তাদের সবাই হয়তো বিভিন্ন অভিযানে নিহত হয়েছেন, নয়তো গ্রেফতার হয়ে জেলে রয়েছেন। এর বিচার কাজ চলছে, আমরা আশা করছি, দ্রুত বিচার কাজ শেষ হবে। জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির মাধ্যমে নিহতের পরিবার একটু হলেও মানসিক সান্ত্বনা পাবেন।’মনিরুল ইসলাম বলেন, নাগরিকের তথ্য সংগ্রহ, সরাসরি অভিযান, সচেতনতামূলক কর্মসূচিসহ ডিএমপির নানা উদ্যোগ রয়েছে। আমরা বিশ্বাস করি, সমন্বিত উদ্যোগের মাধ্যমে বাংলাদেশ জঙ্গিমুক্ত হবে।তিনি বলেন, বৈশ্বিক ও আঞ্চলিক প্রেক্ষাপট বিবেচনায় বড় ধরনের হামলার আশঙ্কা নেই। ছোটখাটো হামলাও যেন না ঘটাতে পারে, সে জন্য আমরা চেষ্টা করে যাচ্ছি।সিরিয়ায় আইএসে যেসব বাংলাদেশিরা যোগ দিয়েছিল, তাদের বিষয়ে জানতে চাইলে মনিরুল ইসলাম বলেন, বাংলাদেশি বংশোদ্ভুত যারা সিরিয়ায় গিয়েছিল, তাদের বিষয়ে সুনির্দিষ্ট তথ্য পাওয়া কঠিন। তবে বাংলাদেশ থেকে কিংবা অন্যান্য দেশ থেকে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত যারা সে দেশে গেছেন, তাদের অনেকেই নিহত হয়েছেন।তিনি বলেন, জীবিতদের কেউ দেশে ফেরত আসতে চাইলে, তাদের আইনের আওতায় আনা সম্ভব হবে। এজন্য দেশের ইমিগ্রেশনসহ সংশ্লিষ্ট সব স্থানে আমাদের তৎপরতা রয়েছে।এ সময় মনিরুল ইসলামসহ ডিএমপির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা হলি আর্টিজান বেকারির সামনে তৈরি মঞ্চে নিহতদের স্মরণে পুষ্পস্তবক অর্পণ এবং তাদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন।এরপর গুলশান পুরাতন থানার সামনে হলি আর্টিজান জঙ্গি হামলায় শহীদ দুই পুলিশ কর্মকর্তার প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন তারা।

Comments

comments

Close
%d bloggers like this: