আজ: ১৮ই অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, সোমবার, ২রা কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১২ই রবিউল আউয়াল, ১৪৪৩ হিজরি, দুপুর ১:৪৪
সর্বশেষ সংবাদ
রাজনীতি শিল্প ও কৃষি বান্ধব বাজেট ঘোষণা করায় প্রধানমন্ত্রীকে তাঁতী লীগ ঢাকা মহানগর উত্তরের অভিনন্দন

শিল্প ও কৃষি বান্ধব বাজেট ঘোষণা করায় প্রধানমন্ত্রীকে তাঁতী লীগ ঢাকা মহানগর উত্তরের অভিনন্দন


পোস্ট করেছেন: মতপ্রকাশ ডেস্ক | প্রকাশিত হয়েছে: ১৫/০৬/২০১৯ , ৮:৫২ অপরাহ্ণ | বিভাগ: রাজনীতি


শিল্প ও কৃষি বান্ধব বাজেট ঘোষণা করায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা কে অভিনন্দন জানিয়ে শনিবার রাজধানীর গুলশানে  তাঁতী লীগ ঢাকা মহানগর উত্তরের পক্ষ থেকে আলোচনা সভার আয়োজন করা হয় । উক্ত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তাঁতী লীগ ঢাকা মহানগর উত্তরের সভাপতি আলহাজ্ব হামিদ আহমেদ , বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তাঁতী লীগ ঢাকা মহানগর উত্তরের সাধারণ সম্পাদক এসএম মোশারেফ হোসেন ।

আলোচনা সভার বক্তারা  ২০১৯-২০২০ অর্থবছরের জন্য ‘সমৃদ্ধ আগামীর পথযাত্রায় বাংলাদেশ: সময় এখন আমাদের, সময় এখন বাংলাদেশের’ শিরোনামে একটি বাস্তবমুখী, সময়োপযোগী এবং ব্যবসা-বাণিজ্য বান্ধব বাজেট মহান জাতীয় সংসদে পেশ করায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল, এফসিএ, এমপি-কে অভিনন্দন ও ধন্যবাদ জানান ।

প্রধান অতিথি তাঁতী লীগ ঢাকা মহানগর উত্তরের সভাপতি আলহাজ্ব হামিদ আহমেদ  বলেন ,এ বছর বাজেটে মোট ব্যয় প্রাক্কলন করা হয়েছে ৫ লক্ষ ২৩ হাজার ১৯০ কোটি টাকা, যা জিডিপি’র ১৮.১ শতাংশ। বাংলাদেশের বর্তমান উন্নয়নের ধারায় যা অত্যন্ত বাস্তসম্মত ও যৌক্তিক। ২০১৯-২০২০ অর্থবছরে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিতে মানবসম্পদ খাতে ২৭.৪ শতাংশ, সার্বিক কৃষি খাতে ২১.৫ শতাংশ, বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতে ১৩.৮ শতাংশ, যোগাযোগ খাতে ২৬ শতাংশ এবং অন্যান্য খাতে ১১.৩ শতাংশ বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে, যার ফলে দেশের মানবসম্পদ ও অভ্যন্তরীণ উন্নয়নের গতি ত্বরান্বিত হবে। বৃহত্তর যোগাযোগ খাতে ৬১ হাজার ৩৬০ কোটি টাকা বরাদ্দের ফলে দেশের যোগাযোগ ব্যবস্থার অভূতপূর্ব উন্নয়ন সাধিত হবে। তিনি আরো বলেন, বাজেটে আয়ের উৎস্য বিবরণীতে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড কর্তৃক নিয়ন্ত্রিত আয় ৬২.২% ধরা হয়েছে। অভ্যন্তরীণ উৎস্য থেকে আয় বৃদ্ধি হলে বিদেশী ঋণের উপর চাপ কমবে।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে তাঁতী লীগ ঢাকা মহানগর উত্তরের সাধারণ সম্পাদক এসএম মোশারেফ হোসেন বলেন , এবারের বাজেটে দেশের জনগণের ওপর নতুন কোন করচাপ তৈরি করা হবে না। এবারের বাজেটে করের আওতা বৃদ্ধি করা হবে, যাতে করহার না বাড়িয়ে অতিরিক্ত রাজস্ব আহরণ করা যায়। এটি অত্যন্ত প্রসংশনীয় উদ্যোগ।

তাঁতী লীগ ঢাকা মহানগর উত্তরের সিনিয়র সহসভাপতি শিকদার টিটো বলেন , শিক্ষিত বেকারদের জন্য স্ট্যার্ট আপ ফান্ড থেকে ঋণ নিয়ে নতুন উদ্যোক্তা তৈরী করা হবে যা নতুন নতুন উদ্যোক্তা সৃষ্টিতে সহায়তা করবে এবং কর্মসংস্থান সৃষ্টি হবে। রেমিট্যান্স প্রেরণে প্রবাসি বাংলাদেশিদের উৎসাহিত করতে ২ শতাংশ হারে প্রণোদনা প্রদান ও প্রবাসীদের জন্য বীমা সত্যিই প্রশংসার দাবিদার। সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচীর আওতায় বিভিন্ন ভাতার পরিমাণ ও উপকারভোগীর সংখ্যা বাড়ানো যে উদ্যোগ তা প্রসংশনীয় উদ্যোগ। শিক্ষা ও কৃষি খাতে বরাদ্দ বৃদ্ধি করায় দেশের সত্যিকারের উন্নয়ন হবে। কারণ শিক্ষা খাত যেমন দেশের উন্নয়নের চাবিকাঠি, তেমনি কৃষি খাতও দেশের সমৃদ্ধির মূল হাতিয়ার। তাছাড়া দেশের সকল সম্ভাবনাময় পর্যটন স্পটকে দেশি ও বিদেশি পর্যটকদের উপযোগী করে গড়ে তোলা হবে আশা করি সিলেটের পর্যটন শিল্প আগামী বাজেটে এগিয়ে যাবে এ প্রত্যাশা রাখি। অর্থনৈতিক অঞ্চল ও হাইটেক পার্কে বিনিয়োগের ক্ষেত্রে দশ বছরের জন্য বিভিন্ন হারে কর অব্যাহতি বিনিয়োগ ও ব্যবসা বান্ধব বাজেটের বহি:প্রকাশ।

সভার শেষার্ধে প্রধান অতিথি তাঁতী লীগ ঢাকা মহানগর উত্তরের সভাপতি আলহাজ্ব হামিদ আহমেদ বলেন ,  ২০১৯-২০২০ অর্থবছরের জন্য ঘোষিত বাজেট একটি উন্নয়নমুখী, সময়োপযোগী ও জনবান্ধব বাজেট। সঠিকভাবে বাস্তবায়িত হলে এই বাজেট দেশ ও জনগণের জন্য কল্যাণ বয়ে আনবে বলে প্রত্যাশা করছি ।

 

 

Comments

comments

Close
%d bloggers like this: