আজ: ১১ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, রবিবার, ২৮শে চৈত্র, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৯শে শাবান, ১৪৪২ হিজরি, রাত ৪:৫৯
সর্বশেষ সংবাদ
জীবন ধারা ডায়েটিং মানে পরিমিত ও সুষম খাবার

ডায়েটিং মানে পরিমিত ও সুষম খাবার


পোস্ট করেছেন: মতপ্রকাশ ডেস্ক | প্রকাশিত হয়েছে: ১২/০৬/২০১৯ , ৭:২৬ পূর্বাহ্ণ | বিভাগ: জীবন ধারা


আমরা অনেকেই না জেনে অনেক ভুলভাবে খাওয়া-দাওয়া করছি। কিন্তু একটু জেনে বুঝে খেলে কিন্তু অনেক সুন্দর স্বাস্থ্য রক্ষা করা যায়। তাই আপনাদের জন্য আমার জানা কিছু ভালো ডায়েট টিপস দিলাম। প্রশ্ন আসতে পারে ডায়েটিং কি? সহজভাবে বলা যায় ডায়েটিং মানে প্রতিদিনের খাদ্যগুলোকে পরিমিত ও সুষমভাবে খাওয়া। এগুলো প্রতিদিন সঠিকভাবে খাবার খাওয়ার জন্য খুবই দরকারী।

খাবারের পরিমাপ বা পরিমাণ কমবেশি হলেই শরীরে ক্যালোরি ও অন্যান্য পুষ্টি উপাদানের অভাব বা আধিক্য দেখা দেয়। ফলে দেখা দেয় অপুষ্টি বা ওজনাধিক্য।

পুষ্টিবিজ্ঞানে খাবারকে মূলত কয়েকটি ভাগে ভাগ করা হয়েছে। প্রতিটি ভাগ থেকে প্রতিদিন একজন মানুষের কী পরিমাণ খাবারের প্রয়োজন, তারও হিসাব করা আছে।

শরীর সুস্থ করতেই খেতে হয় প্রচুর পরিমাণে খাবার। এ সময় আপনার ‘ফুড এক্সচেঞ্জ’ বা ‘খাবার বদল’ করে কম সময়েই ওজন কমানো সম্ভব। প্রতি বেলা খেয়েই কিন্তু সম্ভব ওজন কমানো। তবে সেই খাবার হতে হবে পরিমিত। প্রতি বেলা খেয়েই এক মাসে নির্দিষ্ট ওজন কমানোর নিন্মাক্ত খাদ্যতালিকা অনুযায়ী।

সকাল ৮টা : আটার তৈরি একটি রুটি + ডিম একটি + অল্প তেলে ভাজা মৌসুমি সবজি ১০০ গ্রাম।
বেলা ১১টা : সবজির স্যুপ এক বাটি + কলা ছাড়া যে কোনো মৌসুমি ফল একটি।
বেলা ২টা : ভাত ১ কাপ + মাছ ১ টুকরা + মসুর ডাল আধা কাপ + অল্প তেলে ভাজা সবজি আর সালাদ ২০০ গ্রাম
বিকেল ৫টা : দুধ এক কাপ + টোস্ট বিস্কুট একটি
রাত ৮টা : রুটি একটি অথবা ভাত আধা কাপ + মাংস এক টুকরা + সবজি আর সালাদ ২০০ গ্রাম।
এই নিয়ম মেনে চললে আপনি শারীরিভাবে সুস্থ থাকবেন পাশাপাশি ওজনও কমবে।

লিখেছেনঃ ঋতু মজুমদার ,  নির্বাহী সম্পাদক , দৈনিক মতপ্রকাশ ।

Comments

comments

Close
%d bloggers like this: