আজ: ২৩শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, শুক্রবার, ১০ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১১ই রমজান, ১৪৪২ হিজরি, রাত ১২:২২
সর্বশেষ সংবাদ
খেলাধূলা নিউজিল্যান্ডের কাছে পাত্তাই পেল না শ্রীলংকা

নিউজিল্যান্ডের কাছে পাত্তাই পেল না শ্রীলংকা


পোস্ট করেছেন: মতপ্রকাশ ডেস্ক | প্রকাশিত হয়েছে: ০২/০৬/২০১৯ , ১২:০০ পূর্বাহ্ণ | বিভাগ: খেলাধূলা


উইকেটে থাকা খানিকটা সুবিধা দারুণভাবে কাজে লাগিয়ে লংকানদের কাঁপিয়ে দিলেন গতিময় দুই পেসার ম্যাট হেনরি, লকি ফার্গুসন। অধিনায়ক দিমুথ করুনারত্নের আদ্যন্ত ব্যাটিংয়ের পরও নিউ জিল্যান্ডের বিপক্ষে বিশ্বকাপে নিজেদের সর্বনিম্ন রানে গুটিয়ে গেল শ্রীলংকা। শুরুর জুটির দৃঢ়তায় সেই রান পেরিয়ে বড় জয়ে বিশ্বকাপ অভিযান শুরু করল কেন উইলিয়ামসনের দল। কার্ডিফে ১০ উইকেটে জিতেছে নিউ জিল্যান্ড। ১৩৭ রানের লক্ষ্য ২০৩ বল বাকি থাকতে পেরিয়ে গেছে তারা। সোফিয়া গার্ডেন্সে শনিবার টস হেরে ব্যাট করতে নেমে ম্যাচের প্রথম বলে হেনরিকে বাউন্ডারি হাঁকান লাহিরু থিরিমান্নে। পরের বলেই লাইন মিস করে ফিরে যান এলবিডবিস্নউ হয়ে। ইনিংস জুড়ে দেখা গেছে দ্রম্নত ফেরার এই চিত্র। আট ব্যাটসম্যান যেতে পারেননি দুই অঙ্কে। একটু সময় কাটালে টিকে থাকা, রান বের করা খুব কঠিন ছিল না। তবে করুনারত্নে ছাড়া বাকি প্রায় সবাই ক্রিজে গিয়েই শট খেলে দলের ও নিজের বিপদ ডেকে আনেন। কুসল পেরেরাকে ফিরিয়ে শ্রীলংকার জুটি গড়ার চেষ্টা ব্যর্থ করে দেন হেনরি। পরের বলে বিদায় করেন কুসল মেন্ডিসকে। মিডল অর্ডারে ছোবল দেন ফার্গুসন। দ্রম্নত ফিরিয়ে দেন ধনাঞ্জয়া ডি সিলবা ও জিবন মেন্ডিসকে। ব্যাটিং ভরসা অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউসকে শূন্য রানে ফেরান কলিন ডি গ্র্যান্ডহোম। ৬০ রানে ৬ উইকেট হারিয়ে ধুঁকতে থাকা দলটি তিন অঙ্কে যায় করুনারত্নে ও থিসারা পেরেরার জুটিতে। মিচেল স্যান্টনারকে উড়ানোর চেষ্টায় ট্রেন্ট বোল্টকে সহজ ক্যাচ দিয়ে থিসারার বিদায়ে ভাঙে ৫২ রানের জুটি। এরপর বেশি দূর এগোয়নি শ্রীলংকার ইনিংস। বিশ্বকাপে মাত্র দ্বিতীয় ও সব মিলিয়ে দ্বাদশ ব্যাটসম্যান হিসেবে অন্তত ব্যাটিংয়ের কীর্তি গড়া করুনারত্নে অপরাজিত থাকেন ৫২ রানে। তার লড়াকু ইনিংসের পরও বিশ্বকাপে নিউ জিল্যান্ডের বিপক্ষে নিজেদের সর্বনিম্ন রানে গুটিয়ে যায় শ্রীলংকা। আগের সর্বনিম্ন ছিল ১৯৭৯ আসরে নটিংহ্যামে করা ১৮৯। শেষ ব্যাটসম্যান লাসিথ মালিঙ্গাকে ফিরিয়ে সোফিয়া গার্ডেন্সে সর্বনিম্ন ১৩৬ রানে শ্রীলংকাকে থামিয়ে দেন ফার্গুসন। ২২ রানে তিনি নেন ৩ উইকেট। আরেক পেসার হেনরি ২৯ রানে নেন ৩ উইকেট। চার বছর আগে নিউ জিল্যান্ডের বিপক্ষেই চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে শ্রীলংকার ১৩৮ ছিল এই মাঠে সর্বনিম্ন। ছোট পুঁজি নিয়ে একদমই লড়াই করতে পারেনি শ্রীলংকা। নিউ জিল্যান্ডের উদ্বোধনী জুটিই শেষ করে দেয় ম্যাচ। বিশ্বকাপে তৃতীয় ও ওয়ানডেতে নবমবারের মতো ১০ উইকেটে কোনো ম্যাচ জেতে নিউ জিল্যান্ড। অন্যদিকে বিশ্বকাপে প্রথম ও ওয়ানডেতে ষষ্ঠবার ১০ উইকেটে হারল শ্রীলংকা। বিশ্বকাপে এক ইনিংসে সর্বোচ্চ রানের মালিক মার্টিন গাপটিল শুরু থেকেই চড়াও হন বোলারদের ওপর। একটু সময় নিয়ে শট খেলতে শুরু করেন মানরোও। দ্রম্নত জমে যায় তাদের জুটি। সেই জুটি আর ভাঙতেই পারেনি শ্রীলংকা। ৫১ বলে আট চার ও দুই ছক্কায় ৭৩ রানে অপরাজিত থাকেন গাপটিল। ৪৭ বলে ৬ চার ও এক ছক্কায় ৫৮ রান করেন মানরো। তাদের ঝড়ো ব্যাটিংয়ে বিশ্বকাপে ৫০ ওভারের ম্যাচে প্রথমবারের মতো দুইশ’ বল বাকি থাকতে কোনো ম্যাচ হারল শ্রীলংকা। দারুণ বোলিংয়ে শুরুতে শ্রীলংকাকে কাঁপিয়ে দেয়া হেনরি জেতেন ম্যাচ সেরার পুরস্কার। সংক্ষিপ্ত স্কোর : শ্রীলংকা: ২৯.২ ওভারে ১৩৬ (থিরিমান্নে ৪, করুনারত্নে ৫২*, কুসল পেরেরা ২৯, কুসল মেন্ডিস ০, ধনাঞ্জয়া ৪, ম্যাথিউস ০, জিবন মেন্ডিস ১, থিসারা ২৭, উদানা ০, লাকমল ৭, মালিঙ্গা ১; হেনরি ৭-০-২৯-৩, বোল্ট ৯-০-৪৪-১, ফার্গুসন ৬.২-০-২২-৩, ডি গ্র্যান্ডহোম ২-০-১৪-১, নিশাম ৩-০-২১-১, স্যান্টনার ২-০-৫-১) নিউ জিল্যান্ড: ১৬.১ ওভারে ১৩৭/০ (গাপটিল ৭৩*, মানরো ৫৮*; মালিঙ্গা ৫-০-৪৬-০, লাকমল ৪-০-২৮-০, উদানা ৩-০-২৪-০, থিসারা ৩-০-২৫-০, জিবন মেন্ডিস ১.১-০-১১-০)। ফল: নিউ জিল্যান্ড ১০ উইকেটে জয়ী। ম্যান অব দা ম্যাচ: ম্যাট হেনরি।

Comments

comments

Close
%d bloggers like this: