আজ: ২২শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, শুক্রবার, ৬ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৬ই রবিউল আউয়াল, ১৪৪৩ হিজরি, বিকাল ৪:৪৩
সর্বশেষ সংবাদ
প্রধান সংবাদ, বিনোদন শহীদ মিনারে সুবীর নন্দীর মরদেহে সর্বস্তরের শ্রদ্ধা

শহীদ মিনারে সুবীর নন্দীর মরদেহে সর্বস্তরের শ্রদ্ধা


পোস্ট করেছেন: মতপ্রকাশ ডেস্ক | প্রকাশিত হয়েছে: ০৮/০৫/২০১৯ , ১২:০৮ অপরাহ্ণ | বিভাগ: প্রধান সংবাদ,বিনোদন


বরেণ্য সংগীতশিল্পী সুবীর নন্দীর মরদেহ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে নেওয়া হয়েছে। আজ বুধবার (৮ মে) বেলা ১১টার দিকে তার মরদেহ শহীদ মিনারে নেওয়া হয়। সেখানে সুবীর নন্দীর প্রতি শ্রদ্ধা জানাচ্ছেন সর্বস্তরের মানুষ।বেলা সোয়া ১১টার দিকে সুবীর নন্দীর প্রতি ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান গৃহায়ণ ও গণপূর্তমন্ত্রী রেজাউল করিম ও সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কেএম খালিদ। এর পর শ্রদ্ধা জানান গীতিকবি মোহাম্মদ রফিকউজ্জামান, সংগীতশিল্পী রফিকুল আলম, ফকির আলমগীর, শুভ্রদেব, এসডি রুবেল, সাব্বির মহিন, এইচডি রুবেল, মেহেরাব, কিশোর পুলক, চিত্রনায়িকা নূতন, খায়রুল আলম শাকিল, রেজওয়ানা চৌধুরীসহ সর্বস্তরের মানুষ। 

সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের নেতারা জানান, এখানে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে এফডিসিতে নেওয়া হবে সুবীর নন্দীর মরদেহ। এর পর রামকৃষ্ণ মিশনে নেওয়ার পর রাজধানীর সবুজবাগের বরদেশ্বরী কালী মাতা মন্দির ও শ্মশানে আজ তার শেষকৃত্য হবে।এর আগে সংগীতশিল্পী সুবীর নন্দীর মরদেহ সিঙ্গাপুর থেকে বুধবার সকালে ঢাকায় এসে পৌঁছায়। সেখান থেকে তার মরদেহ নিয়ে যাওয়া হয় গ্রিন রোডের বাসায়। সিঙ্গাপুরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বাংলাদেশ সময় গতকাল (মঙ্গলবার) ভোর সাড়ে ৪টায় মারা যান একুশে পদকপ্রাপ্ত বরেণ্য সংগীতশিল্পী সুবীর নন্দী।সুবীর নন্দী দীর্ঘদিন ধরে কিডনি জটিলতায় ভুগছিলেন। নিয়মিতভাবে তার ডায়ালাইসিস করতে হতো। এর মধ্যে হৃদরোগে আক্রান্ত হলে গত ১৪ এপ্রিল তাকে ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচে) ভর্তি করা হয়। ১৮ দিন পর তাকে নেওয়া হয় সিঙ্গাপুরে। সেখানেই মঙ্গলবার তার মৃত্যু হয়।এই শিল্পীর মৃত্যুর খবর পৌঁছানোর পর দেশের সাংস্কৃতিক অঙ্গনে নেমে আসে শোকের ছায়া। রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করে বিবৃতি দেন।দীর্ঘ ক্যারিয়ারে আড়াই হাজারের বেশি গানে কণ্ঠ দেওয়া সুবীর নন্দী চারবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ও চারবার বাচসাস পুরস্কার পেয়েছেন। সংগীতে অবদানের জন্য এ বছরই তাকে একুশে পদকে ভূষিত করে সরকার।তার কণ্ঠে ‘দিন যায় কথা থাকে’, আমার এ দুটি চোখ পাথর তো নয়’, ‘পৃথিবীতে প্রেম বলে কিছু নেই’, ‘আশা ছিল মনে মনে’, ‘হাজার মনের কাছে প্রশ্ন রেখে’, ‘বন্ধু তোর বরাত নিয়া’, ‘তুমি এমনই জাল পেতেছ’, ‘বন্ধু হতে চেয়ে তোমার’, ‘কতো যে তোমাকে বেসেছি ভালো’, ‘পাহাড়ের কান্না দেখে’, ‘আমি বৃষ্টির কাছ থেকে কাঁদতে শিখেছি’, ‘কেন ভালোবাসা হারিয়ে যায়’, একটা ছিল সোনার কইন্যা’, ‘ও আমার উড়াল পঙ্খীরে’ শ্রোতাদের হৃদয়ে অমর হয়ে আছে।

Comments

comments

Close
%d bloggers like this: