আজ: ২৬শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, মঙ্গলবার, ১০ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২০শে রবিউল আউয়াল, ১৪৪৩ হিজরি, সন্ধ্যা ৬:৪৯
সর্বশেষ সংবাদ
জেলা সংবাদ বেনাপোলে বাজার কমিটির অফিসের নিচের মাটি দীর্ঘ ৬ ঘণ্টা খুঁড়েও মেলেনি কোন কঙ্কাল

বেনাপোলে বাজার কমিটির অফিসের নিচের মাটি দীর্ঘ ৬ ঘণ্টা খুঁড়েও মেলেনি কোন কঙ্কাল


পোস্ট করেছেন: মতপ্রকাশ ডেস্ক | প্রকাশিত হয়েছে: ১২/০৩/২০১৯ , ১১:৪৩ অপরাহ্ণ | বিভাগ: জেলা সংবাদ


আরিফুজ্জামান আরিফ: যশোরের বেনাপোল পৌরসভার প্যানেল মেয়র ও শার্শা উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ৬ বছর ধরে নিখোঁজ তারিকুল আলম তুহিনের দেহ বা কঙ্কাল বাজার কমিটির অফিসের নিচে  মাটির মধ্যে পুতে রাখা রয়েছে এমন সন্দেহে সেখানে লাশ ও কংকাল পাওয়ার সন্ধানে খুঁড়াখুঁড়ি  চালানো হয়েছে। দীর্ঘ ৬ ঘণ্টা মাটি খুঁড়েও  কোনো কিছু পাওয়া যায়নি।
বেনাপোল বাজার কমিটির অফিসে আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী মঙ্গলবার বেলা ২টা থেকে রাত ৮ পর্যন্ত যশোরের ম্যাজিস্ট্রেট কাওছার হামিদ ও ঢাকা সিআইডির এএসপি উত্তম কুমারের নেতৃত্বে ৬ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল ও বেনাপোল পোর্ট থানার পুলিশের সহযোগিতায় প্রায় একটানা ৬ ঘণ্টা এ অভিযান চালান  ।
সরেজমিনে দেখা গেছে, বাজার কমিটির কার্যালয়ের দক্ষিণ পার্শ্বে জানালার পাশ থেকে প্রায় উত্তর দিক পর্যন্ত ৭ ফুট খনন করা হয়। খননের গভীরতা প্রায় আনুমানিক ৬ ফুট। দীর্ঘ সময় এ অভিযান চালালেও শেষ পর্যন্ত কোনো লাশের কংকাল উদ্ধার হয়নি।
এ সময় বেনাপোল বাজার কমিটির অফিসের সামনে নিখোঁজ তুহিনের স্ত্রীসহ হাজার হাজার উৎসুক জনতা ভিড় জমায়।
প্রাথমিকভাবে সবার ধারণা ছিল হয়তো নিখোঁজ তারিকুল আলম তুহিনের কঙ্কাল উদ্ধার হবে। বাজার কমিটির এই অফিসটি আগে ছাত্রলীগের (মেয়র পন্থী) অফিস ছিল। নিখোঁজ তুহিন ছিল এমপি গ্রুপের সমর্থক। তারিকুল আলম তুহিন ২০১৩ সালের ৭ মার্চ ঢাকার শেরে বাংলা নগরস্থ ন্যাম ভবনের সামনে থেকে নিখোঁজ হয়।কিন্তু এ পর্যন্ত তার কোনো খোঁজ পাওয়া যায়নি।
সিআইডির এক কর্মকর্তা বলেন, আমরা লাশের কংকালের তথ্য পেয়েছি। সেই সূত্র ধরে আমরা চেষ্টা করছি লাশের কংকাল উদ্ধারের। এখনো কোনো কিছু পাওয়া যায়নি।
ম্যাজিস্ট্রেট কাওছার হামিদ বলেন, আমরা আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী মিসিং  তুহিনের কংকাল খোঁজ করে কিছু পাইনি। দুপুর ২টা থেকে আমরা কার্যক্রম শুরু করে রাত ৮টা পর্যন্ত কোনো কিছু না পেয়ে আপাতত কার্যক্রম বন্ধ করেছি। পরবর্তীতে আদালতের নির্দেশনা পেলে সেই অনুযায়ী আমরা আবার কার্যক্রম শুরু করব। আপাতত তালা মেরে আমরা ঘরের চাবি বাজার কমিটির কাছে হস্তান্তর করছি।
এ সময় প্রশাসনের সঙ্গে স্থানীয় রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংবাদিক ও গণ্যমান্য ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন।

Comments

comments

Close
%d bloggers like this: