আজ: ২৬শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, মঙ্গলবার, ১০ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২০শে রবিউল আউয়াল, ১৪৪৩ হিজরি, রাত ১১:২২
সর্বশেষ সংবাদ
ফেসবুক থেকে ভাগ্নিকে বাঁচানোর আকুতি নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর কাছে ছাত্রলীগ নেতার খোলা চিঠি

ভাগ্নিকে বাঁচানোর আকুতি নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর কাছে ছাত্রলীগ নেতার খোলা চিঠি


পোস্ট করেছেন: মতপ্রকাশ ডেস্ক | প্রকাশিত হয়েছে: ২১/০২/২০১৯ , ১:২৮ অপরাহ্ণ | বিভাগ: ফেসবুক থেকে


বিসমিল্লাহির রহমানির রাহিম

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ এর মাননীয় সভাপতি,গনতন্ত্রের মানষ কন্যা, বিদ্যানন্দিনী, দেশরত্ন শেখ হাসিনা বরাবর খোলা চিঠি ।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, আমার সালাম নিবেন।আমি মোঃ মিজানুর রহমান (সিনহা), আমি বাংলাদেশ ছাত্রলীগ,রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় শাখার বর্তমান কমিটির একজন সহ-সভাপতি এবং সাবেক ছাত্র-বৃত্তি বিষায়ক উপ সম্পাদক ও সভাপতি শহিদুল্লাহ কলা ভবন । 

প্রিয় নেত্রী আজ খুব দুঃখ ভারাক্রান্ত মন নিয়ে আপনার উদেশ্যে আমার এই খোলা চিঠি। চিঠি টা লেখার সময় আমার দু চোখ বেয়ে অঝোরে জল  ঝড়ছে। কারন আমার বড় বোনের মেয়ে মোসাঃ সুমাইয়া আক্তার রূম্পা বয়স ১৮,
পিতাঃ মোঃ সেলিম রেজা, গ্রাম নতুন বুধপাড়া পোষ্টঃ বুধপাড়া, থানা মতিহার জেলা রাজশাহী। সে রাঃবি সংলগ্ন বিনোদপুর ইসলামিয়া ডিগ্রী কলেজের ২য় বর্ষের মেধাবী শিক্ষার্থী। তার দুই টা কিডনি নষ্ট হয়ে গেছে। তাকে সুস্থ করে তুলতে হলে প্রচুর টাকার প্রয়োজন। এমতাবস্থায় তার পরিবারের পক্ষে তার চিকিৎসা করানো সম্ভব হচ্ছে না।কারন তার পিতা এক জন চা বিক্রেতা।যার ফলে আমার ভাগ্নীর চিকিৎসার জন্য বিভিন্ন ভাবে টাকা তোলার চেষ্টা করে যাচ্ছি।

হে বঙ্গকন্যা, আজ অনেক কষ্ট নিয়ে কথা গুলো বলছি,ভাগ্নীর চিকিৎসার জন্য সাহায্যের আবেদন জানিয়ে ফেসবুকে  ষ্ট্যাটাস দিয়েছিলাম, ছাত্রলীগের ছোট ভাই গুলোকে টাকা তুলতে বলেছিলাম,তারা তুলেছে এখনও তুলছে. ।

প্রিয় নেত্রী, বড় কষ্ট লাগে যখন দেখি আমাদের ক্যাম্পাসের ১৭ টা হল ৫৭ টা বিভাগ ৩৬ হাজার শিক্ষার্থী ১২০০ বেশি শিক্ষক থাকার পরেও টাকা উঠে ২৫/৩০ হাজার টাকা। যেখানে আমি নিজে ও অনেক মানুষের জন্য লক্ষ লক্ষ টাকা তুলে দিয়েছি এই ক্যাম্পাস থেকেই।সেখানে আমার ভাগ্নীর বেলায় টাকা উঠে না কেননা আমি ছাত্রলীগ বলে ,  অসুস্থ মেয়েটা ছাত্রলীগ নেতার ভাগ্নী বলে । 

হে মানবতার মা, শুধু তাই নয় এই ক্যাম্পাসে তিনটা সাংবাদিকদের সংগঠন আছে, সেখানে ১০০ জনের ও বেশি সাংবাদিক আছে তারা ইচ্ছা করলেই আমার ভাগ্নিকে নিয়ে নিউজ করতে পারতে। কিন্তু দুঃখের বিষয় দুই -তিনটা সাংবাদিক ছোট ভাই  ছাড়া কেউ নিউজ করেনি।অনেক সাংবাদিককে আমি লিংক পাঠিয়েছি কিন্তু করেনি।জানি না কেন করেনি।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, আমি অনেক নেতাদের এসএমএস করেছি, অনেকেই দেখেছেন  নিউজটা কিন্তু কিছু করে নি।আমার বাবা অনেক নেতাদের কাছে গিয়েছেন  কিন্তু এখন পর্যন্ত কিছুই হয় নি।
হে অভিভাবক, আমার ভাগ্নি এখন ঢাকায় অবস্থান করছে পি জি হাসপাতালে ভর্তি করাবো কিন্তু সেখানেও সুপারিস ছাড়া ভর্তি নিচ্ছে না। প্রিয় নেত্রী, সকল দিক বিবেচনা করে আমি আপনার কাছে এই খোলা চিঠি লিখতে বাধ্য হয়েছি।

হে বিদ্যানন্দনী, এখন আপনিই পারেন আমার ভাগ্নিকে সুস্থ করে তাকে আবার কলেজে যাওয়ার সুযোগ করে দিতে।
প্রিয় আপা,আমি জানিনা আমার মত এই ক্ষুদ্র কর্মীর এই লিখা আপনার নিকট পৌছাবে কিনা …  বা আপনি আমার এই চিঠিটি দেখবেন কি না। তবে আমার বিশ্বাস আমার এই লেখা আপনি পরবেন কোন না কোন মাধ্যমে।আর আমি এটাও বিশ্বাস করি আপনি নিশ্চয় আমার ভাগ্নির জন্য আপনার সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিবেন।আর যদি আপনার নিকট আমার এই লেখা না যায়, আর এই লেখা পড়েও যদি কোন হৃদয়বান  ব্যাক্তির দয়া না হয় মেয়েটির উপর তা হলে মনে হয় মেয়েটিকে বাঁচাতে পারবোনা। তাই দয়া করে মেয়েটিকে বাঁচান ,  দয়া করুন।

হে নেত্রী, আমার ভাগ্নি বাঁচতে চায়,  ওকে  বাঁচতে  সাহায্য করুন।

পরিশেষে, আপনার মঙ্গল ও সুস্বাস্থ্য কামনা করছি।আপনি আরো হাজার বছর বেচে থাকুন ১৬ কোটি মানুষের ভালোবাসা নিয়ে।
জয় বাংলা জয় বঙ্গবন্ধু  ।

ইতি, আপনার বিশ্বস্থ ভ্যানগার্ড,
বাংলাদেশ ছাত্রলীগের একজন ক্ষুদ্র কর্মী।
মোঃ মিজানুর রহমান সিনহা
মোবাঃ ০১৭৬৬৪৭৩৬৩৪

Comments

comments

Close
%d bloggers like this: