আজ: ৮ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, শনিবার, ২৫শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৬শে রমজান, ১৪৪২ হিজরি, বিকাল ৪:০৭
সর্বশেষ সংবাদ
আন্তর্জাতিক, উপমহাদেশ পশ্চিমবঙ্গে তৃণমূল বিধায়ক খুন, মুকুল রায়ের বিরুদ্ধে মামলা

পশ্চিমবঙ্গে তৃণমূল বিধায়ক খুন, মুকুল রায়ের বিরুদ্ধে মামলা


পোস্ট করেছেন: মতপ্রকাশ ডেস্ক | প্রকাশিত হয়েছে: ১০/০২/২০১৯ , ১:৩২ অপরাহ্ণ | বিভাগ: আন্তর্জাতিক,উপমহাদেশ


ভারতের পশ্চিমবঙ্গে আততায়ীর গুলিতে খুন হয়েছেন ক্ষমতাসীন তৃণমূল কংগ্রেসের বিধায়ক সত্যজিৎ বিশ্বাস (৪২)। স্থানীয় সময় শনিবার (৯ ফেব্রুয়ারি) রাতে নদিয়া জেলার কৃষ্ণগঞ্জের এই বিধায়ক খুন হন। এ ঘটনায় বিজেপি নেতা মুকুল রায়সহ ৪ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে।   পার্সটিভি

পুলিশের বরাতে বলা হয়, সুজিত মণ্ডল ও কার্তিক মণ্ডল নামের দুই স্থানীয় বাসিন্দাসহ সন্দেহভাজন ৮ ব্যক্তিকে আটক করেছে পুলিশ। আনন্দবাজার

রোববার (১০ ফেব্রুয়ারি) ভারতীয় গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদে বলা হয়, স্থানীয় সময় শনিবার রাতে নদিয়ার হাঁসখালিতে সরস্বতী পুজার একটি অনুষ্ঠানে খুন হন তৃণমূল বিধায়ক সত্যজিৎ বিশ্বাস। ফুলবাড়ি এলাকায় নিজের বাড়ির সামনে স্থানীয় ক্লাবের এ অনুষ্ঠান চলাকালীন পয়েন্ট ব্ল্যাঙ্ক রেঞ্জ থেকে তার কপালে গুলি করে আততায়ী। ঘটনার উত্তেজনায় সৃষ্ট পরিস্থিতির সুযোগে পালিয়ে যায় অজ্ঞাত খুনি।

স্বামীর মৃত্যু সংবাদে কান্নায় ভেঙে পড়েন নিহত বিধায়ক সত্যজিৎ বিশ্বাসের স্ত্রী রূপালী বিশ্বাস হালদার  (ছবি: আনন্দবাজার)

 

  তৃণমূলের পক্ষ থেকে ওই হত্যার ঘটনায় বিজেপি’র লোকজন জড়িত আছে বলে অভিযোগ করা হয়েছে। অন্যদিকে, বিজেপির পক্ষ থেকে ওই অভিযোগ অস্বীকার করে একে তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের ফল বলে মন্তব্য করা হয়েছে।

নদিয়া জেলার ভারপ্রাপ্ত তৃণমূল নেতা অনুব্রত মণ্ডলের অভিযোগ, উনিশে ফিনিশ হয়ে যাবে বুঝে বিজেপি এখন তৃণমূলের শক্তপোক্ত নেতাদের সরিয়ে দিয়ে অরাজকতা সৃষ্টি করে ভয় দেখানোর চেষ্টা করছে।

তৃণমূলের মহাসচিব ও রাজ্যের মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় বলেছেন, ‘নির্বাচনের আগে বিজেপি গোটা রাজ্যজুড়ে অশান্তি সৃষ্টি করার চেষ্টা করছে। নদিয়ার সীমান্ত ঘিরে এসব অঞ্চলে গোলাবারুদ নিয়ে আন্দোলনের নাম করে তাঁরা খুনের রাজনীতি করছে। বিজেপির নেতৃত্বে যে নৃশংস হত্যার যে অভিযোগ ওখানকার সাধারণ মানুষ করছেন তাঁর সম্পূর্ণ তদন্ত হয়ে এর পিছনে যেসব নাটেরগুরু আছে তাঁদেরকে গ্রেফতার করে ওই পরিবারের প্রতি সুবিচার করতে হবে।’

নিহত সত্যজিৎবাবুর স্ত্রী রূপালী বিশ্বাস হালদার দাবি করেছেন, এর পিছনে স্থানীয় কোনও যুবক জড়িত থাকতে পারে। তাঁর কথায়, “স্বামীর কাছ থেকে শুনেছিলাম, ক’দিন আগেই একটি ছেলে তৃণমূল ছেড়ে বিজেপি-তে যোগ দিয়েছে। এ ঘটনার পিছনে তার হাত থাকতে পারে।”

পুলিশ জানিয়েছে, ঘটনার পরই ওই অনুষ্ঠান থেকে সুজিত এবং কার্তিককে পালিয়ে যেতে দেখেন স্থানীয় বাসিন্দারা। পরে রোববার তাদের গ্রেফতার করে পুলিশ। এ ছাড়া, খুনের পর থেকে এখনও এলাকাছাড়া রয়েছেন অভিজিৎ পণ্ডারী নামের স্থানীয় এক যুবক।

শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত জানা যায় খুনের তদন্তে নেমেছে সিআইডি-র একটি দল। এই খুনের পিছনে কে বা কারা জড়িত, তা এখনও স্পষ্ট নয়।

সূত্র: আনন্দবাজার

Comments

comments

Close
%d bloggers like this: