আজ: ৫ই মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, শুক্রবার, ২০শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২১শে রজব, ১৪৪২ হিজরি, রাত ৩:০৬
সর্বশেষ সংবাদ
জেলা সংবাদ পাখির কলকাকলিতে মুখরিত ভোলার দ্বীপগুলো

পাখির কলকাকলিতে মুখরিত ভোলার দ্বীপগুলো


পোস্ট করেছেন: মতপ্রকাশ ডেস্ক | প্রকাশিত হয়েছে: ০৮/০২/২০১৯ , ৭:০১ অপরাহ্ণ | বিভাগ: জেলা সংবাদ


অনিক আহম্মদ , ভোলাঃ চারদিকে  সাগর-নদী, চর আর সবুজের বন। দু’পাশে পাখিদের কিচির-মিচির আওয়াজ আর কলকাকলি শোনা যায়। এমন দৃশ্যের দেখা মেলে সকাল-বিকাল। একপ্রাপ্ত থেকে অন্যপ্রান্তে ডানামেলে পাখিদের উড়ে বেড়ানো আর খাবার সংগ্রহের দৃশ্য যেন মুগ্ধ করে দর্শনার্থীদের।

ভোলার চরফ্যাশনের কুকরী-মুকরী, ঢালচর ও মনপুরাসহ বেশ কিছু স্থানে এমন দৃশ্য দেখা যায়। একটু দুরে তাকালেই দেখা যায় দল বেধে সারি সারি পাখির মেলা।
শীত মৌসুম আসলেই দ্বীপজেলা ভোলার চরাঞ্চলে লাখ লাখ অতিথি পাখি আশ্রয় নেয় । প্রতিবছরের মত এ বছরও তার ব্যাতিক্রম হয়নি। এ বছরও সুদুর সাইবেরিয়া থেকে ভোলাতে অতিথি পাখি এসেছে। এখানকার অন্তত ২০টি চরে আশ্রয় নিয়েছে এসব পাখি।
অতিথি পাখিদের আগমনকে কেন্দ্র করে একদিকে বেড়েছে বনাঞ্চলের সৌন্দয্য অন্যদিকে পর্যটকরাও ছুটে আসছেন পাখি দেখতে।
তবে চরাঞ্চলে  বসতি নির্মান, চারন ভুমি আর শিকারীদের কারনে পাখিদের আগমন কিছু কম বলে জানিয়েছেন এলাকাবাসী। তারা বলছেন, পাখি শিকার বন্ধ এবং জনগনকে আরো বেশী সচেতন করা গেলে পাখিদের আগমন আরো বেড়ে যাবে ।
পাখি দেখতে আসা পর্যটক ইমতিয়াজ, ফয়েজ ও শাহরিয়ার জিলন বলেন, চরে সৌন্দয্য বাড়িয়ে দেয় অতিথি পাখি। দল বেধে পাখিদের উড়ে বেড়ানো আর খাবার সংগ্রহের দৃশ্য সত্যিই অতুলনীয়। পাখিদের কিচির-মিচির শদ্ধ শুনতে অনেক ভালোলাগে। পাখি দেখতে পেলেই তা ক্যামেরা বন্দী  করছি। আমাদের মত অনেকে পাখি দেখতে ছুটে  এসেছেন।

বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, বঙ্গোপসাগরের কোলঘেঁষা ঢালচর মনপুরা, কলাতলীর চর, চর কুকরি মুকরি, চর শাহজালাল, চরশাজাহান, চর পিয়াল, আইলউদ্দিন চর, চরনিজাম, ডেগরারচরসহ মেঘনা-তেঁতুলিয়ার উপকূলবর্তী মাঝের চর, মদনপুরা সহ বিভিন্ন চরে পাখিদের আনা-গোনা। সকাল বিকাল খাবার সংগ্রহে ব্যস্ত সময় পার  করতে দেখা যায় এদের। ডানা মেলে উড়েচলা ও পাখিদের কলকাকলীতে মুখর থাকে চরগুলো।
এলাকাবাসীর অভিযোগ, একশ্রেনীর অসাধু শিকারী বিষটোপ, ধানের সাথে বিষ মিশিয়ে আবার ছোট ছোট মাছের সাথে বিষ মিশিয়ে পাখি শিকারে বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। চরে আশ্রয় নেয়া পাখিরা অনেকটা অনিরাপদ হয়ে পড়েছে। এছাড়াও অতিথি পাখিদের আবাসস্থল, বিচরণভুমি ও খাদ্যের সংকটও রয়েছে।
এ ব্যাপারে ভোলার বন বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মো: ফরিদ মিয়া বলেন, বিগত বছরের মত এ বছরও ভোলাতে অতিথি পাখিদের আগমন ঘটেছে, এখানকার চরগুলো অতিথি পাখিদের জন্য বিখ্যাত। পাখিদের কেউ যাতে শিকার করতে না পারে সে জন্য বন বিভাগের প্রতিটি রেঞ্জ থেকে টহন জোরদার করা হয়েছে। তারা নিয়মিত টহল দিচ্ছে।

Comments

comments

Close
%d bloggers like this: