আজ: ১৭ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, সোমবার, ৩রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ৫ই শাওয়াল, ১৪৪২ হিজরি, রাত ৩:১২
সর্বশেষ সংবাদ
জীবন ধারা যে পাঁচ ধরণের বয়ফ্রেণ্ড থেকে দূরে থাকাই মঙ্গল

যে পাঁচ ধরণের বয়ফ্রেণ্ড থেকে দূরে থাকাই মঙ্গল


পোস্ট করেছেন: মতপ্রকাশ ডেস্ক | প্রকাশিত হয়েছে: ৩১/০১/২০১৯ , ১২:৫৩ পূর্বাহ্ণ | বিভাগ: জীবন ধারা


প্রেম নাকি কোনো বয়স মানে না। এর অর্থ এই দাঁড়ায়, যে কোনো বয়সে গিয়েই মানুষ প্রেমে পড়ে। প্রেমের ক্ষেত্রে সাধারণত পরিচয়, জানাশোনা, ভাবের আদান-প্রদান ইত্যাদি সব হবার পর ধীরে ধীরে ভালোলাগার সিড়ি বেয়ে প্রেমের সম্পর্ক তৈরি হয়। তবে অনেকের ক্ষেত্রে এমনও শোনা যায়, তারা নাকি প্রথম দেখায়ই প্রেমে পড়েন।

তবে এ কথা ঠিক প্রেমে পড়া মানেই সম্পর্ক তৈরি হবে তা নয়। আবার সম্পর্ক তৈরি হয়ে গেলেও সেটার স্থায়ীত্ব বা পরিণতি কি হবে সেটাও ভেবে দেখা জরুরী। তবে পাঁচ ধরণের বয়ফ্রেণ্ড রয়েছে যাদের কাছ থেকে দূরে থাকাই ভালো, বিশেষ করে সম্পর্ক তৈরি বা সম্পর্কের স্থায়ীত্ব দেওয়া বা বিয়ে করার ক্ষেত্রে।

তো চলুন জেনে নেওয়া যাক, সেই পাঁচ ধরণের পুরুষ কারা, কি তাদের বৈশিষ্ট্য।

প্রথম দেখাতেই প্রেমে পড়েছেন এমন পুরুষ

প্রথমেই বলা হয়েছে, সুস্থ স্বাভাবিক প্রেম কিভাবে তৈরি হয়। কিন্তু প্রথম দেখাতেই প্রেমে পড়ার বিষয়টি সত্যিই ভাবনার। কারণ প্রথম দেখায়ই কেউ প্রেমে পড়তে পারে না। প্রকৃতপক্ষে এটা এক ধরণের আবেগ বা মোহ হতে পারে। সাধারণত এই ধরণের পুরুষদের ক্ষেত্রে হয়তো অনেক বেশি অ্যাড্রেনালিন হরমোন নির্গত হয়।

প্রেমিকের প্রথম দিকের আবেগ আর পরে খুঁজে পাবেন না। 

এতে তারা বেশি আবেগি হয়ে পড়েন। এই সব পুরুষেরা প্রেমের প্রথম দিনে এমন আচরণ করেন যে, আপনি ছাড়া আর কেউ নেই তার দুনিয়ায়। তার চাল-চলন, কথা-বার্তা ও কর্মে সে সবই প্রকাশ পায়। কিন্তু কিছু দিন যেতেই মোহ কেটে যায় এবং খুঁত ধরতে শুরু করে। ফলে সম্পর্কে শুরু হয় জটিলতা।

সেক্স অ্যাডিক্ট

এই ধরণের প্রেমিকেরা দুই চারটা কথা বলার পরই সেক্সুয়াল কথা বলা শুরু করেন। আবার এমনও দেখা যায়, চারটি কথা বললে তিনটি কথাই শরীর সংক্রান্ত। এসবের একটিই অর্থ, প্রেমিকের মোহ শুধু আপনার রী। এ কথা ঠিক, শারীরিক সম্পর্ক প্রেমেরই একটি অংশ, কিন্তু তা কখনো প্রেমের মূল ভিত্তি হতে পারে না। অতএব সতর্ক হোন।

অতিরিক্ত যত্নবান
যারা সম্পর্কের প্রথম দিকে অতিরিক্ত যত্নবান হওয়ার ভাব দেখায় তাদের ক্ষেত্রেও সাবধান হওয়া জরুরী। কারণ প্রথম প্রথম বয়ফ্রেণ্ড এর এমন যত্নবান রূপ ভালোই লাগবে। কিন্তু কিছুদিন যেতে এ ধরণের আচরণ অত্যাচারে পরিণত হয়।

প্রেমিকের অতিরিক্ত যত্ন আপনার জন্য অত্যাচারে পরিণত হবে। ছবি: পিক্সাবে

দেখা যায়, আপনি কোথায় যাচ্ছেন, কী খাচ্ছেন, কী করছেন, কখন ঘুমাচ্ছেন, কখন বাড়ি থেকে বের হচ্ছেন, কত সময় বাড়ির বাইরে ছিলেন, কাদের সঙ্গে ছিলেন, কত জন ছেলে ছিল, ট্যাক্সি ধরতে পারলেন কি না, এমন কী রাতে আপনার পোষা বিড়াল কি খেল বা ঘুমালো কি না, এসব জানতে বার বার ফোন করতে থাকবে। দেখবেন, কিছু দিনের মধ্যেই আপনার সমস্ত সুখ-স্বাধীনতা অক্কা পেয়েছে বয়ফ্রেণ্ড এর অত্যাচারে!
উদাসীন টাইপ
প্রেমিকার প্রতি অতিরিক্ত যত্নবান হয়ে তার শ্বাসরোধ করা যেমন সম্পর্কে সুস্থতার লক্ষণ নয়, ঠিক তেমনই সম্পর্কে অতিরিক্ত উদাসীনতাও সুস্থ সম্পর্কের লক্ষণ নয়। একটা বিষয় মনে রাখতে হবে, সম্পর্ককে প্রতি মূহুর্তে গড়ে তুলতে হয় একটু একটু করে, মন দিয়ে প্রাণ দিয়ে।
সম্পর্ক আকাশ ছোঁয় উভয়ের মানসিক আদান-প্রদানের মাধ্যমে, উদাসীনতা সেখানে একেবারেই বেমানান। তাই মানসিক আদানপ্রদানের জায়গায় কমতি থাকলে বুঝতে হবে আপনার প্রেমিক সম্পর্কের প্রতি খুব একটা সিরিয়াস নয়।
তুমি আমার বউ টাইপ

প্রেম বা সম্পর্ক মানেই কিন্তু বিয়ে নয়, প্রেমের সম্পর্কের পরিণতি বিয়ে হতে পারে। কিন্তু সম্পর্কের প্রথম দিন থেকে যদি প্রেমিকাকে কেউ বউ ডাকতে শুরু করে সেটা আদিখ্যেতা ছাড়া আর কিছুই নয়।

এমন আদিখ্যেতা অদূরদর্শীতারই নিদর্শন। প্রথম দিনেই সম্পর্ককে যারা একটি নির্দিষ্ট ডেস্টিনেশনে বেঁধে দেন, সেই আদিখ্যেতা করা অদূরদর্শী ব্যক্তির সঙ্গে সম্পর্কে জড়ানো কতটা বুদ্ধিদীপ্ত সেটা ভেবে দেখুন।

Comments

comments

Close
%d bloggers like this: