আজ: ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, মঙ্গলবার, ৬ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৪ই সফর, ১৪৪৩ হিজরি, সন্ধ্যা ৭:২৫
সর্বশেষ সংবাদ
বিভাগীয় সংবাদ, রাজশাহী বিভাগ রাজশাহীতে নির্বাচনী সংঘর্ষে এক আওয়ামী লীগ নেতা নিহত

রাজশাহীতে নির্বাচনী সংঘর্ষে এক আওয়ামী লীগ নেতা নিহত


পোস্ট করেছেন: মতপ্রকাশ ডেস্ক | প্রকাশিত হয়েছে: ৩০/১২/২০১৮ , ১:০৮ অপরাহ্ণ | বিভাগ: বিভাগীয় সংবাদ,রাজশাহী বিভাগ


রাজশাহীতে নির্বাচনী সংঘর্ষে এক আওয়ামী লীগ নেতা নিহত হয়েছেন। রাজশাহীর তানোরে সংঘর্ষে তিনি নিহত হন। নিহত ব্যক্তির নাম মোদাচ্ছের আলী (৪০)। গোদাগাড়ী উপজেলার পাঁচন্দর ইউনিয়নের ৮ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন তিনি। এর আগে মোহনপুর উপজেলায় এক যুবক নিহত হন। তিনি মোহনপুর উপজেলার আব্দুস সাত্তারের পুত্র মেরাজুল ইসলাম মেরাজ (২৫)।

মোদাচ্ছের আলীকে বিএনপি-জামায়াতের নেতাকর্মীরা লাঠি ও হকিস্টিক দিয়ে পিটিয়ে হত্যা করেছে বলে উপজেলার পাঁচন্দর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল মতিন অভিযোগ করেন। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ভোট দেয়ার জন্য তিনি লাইনে দাঁড়িয়ে ছিলেন। ওই সময় হঠাৎ তার ওপর অতির্কিত হামলা চালায়। লাঠির আঘাতে মোদাচ্ছের আলী গুরুতর জখম হন। স্থানীয় লোকজন তাকে উপজেলা স্থাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

মোহাম্মদপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার মোরশেদ আলী মৃধা বলেন, এ ঘটনার পর ভোটগ্রহন দুই ঘন্টার জন্য স্থগিত করা হয়েছিল। তানোর থানার ওসি রেজাউল ইসলাম বলেন, ঘটনার খবর পেয়ে সেখানে অতিরিক্ত পুলিশসহ বিজিবি ও সেনাবাহিনী মোতায়েন করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনা হয়।

এর আগে রাজশাহীর মোহনপুরে ভোট কেন্দ্র দখল করাকে কেন্দ্র করে মেরাজুল ইসলাম মেরাজ (২৫) নামের এক যুবক নিহত হন। রোববার সকাল ১১টার দিকে রাজশাহীর মোহনপুর উপজেলার জাহানাবাদ ইউনিয়নের পাকুড়িয়া সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে।

মোহনপুর থানার ওসি আবুল হোসেন জানান, বিএনপি-জামায়াত কর্মীরা কেন্দ্রের দখল নিতে গেলে আওয়ামী লীগ কর্মীরা প্রতিরোধ গড়ে তোলেন। এসময় তারা ছাত্রলীগ লীগ কর্মী মেরাজুল ইসলাম পিটিয়ে ও কুপিয়ে মাথায় জখম করে। পরে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়া হলে চিকিৎসক তাকে মেরাজুলকে মৃত ঘোষণা করেন।

রাজশাহী-০৩ (পবা-মোহনপুর) আসনের আওয়ামী লীগের প্রার্থী ও বর্তমান সাংসদ আয়েন উদ্দিন জানান, নিহত মেরাজুল উপজেলা ছাত্রলীগের সদস্য। বিএনপি-জামায়াত ক্যাডাররা ভোট কেন্দ্র দখল করতে এসে তাকে কেন্দ্রের সামনে প্রকাশ্য কুপিয়ে ও পিটিয়ে হত্যা করেছে। তবে বিএনপি প্রার্থী শফিকুল হক মিলন বলেন, মেরাজুল ছাত্রলীগ কর্মী নয়। সে ছাত্রদলের সক্রিয় নেতা। সাংসদ আয়েন উদ্দীন গাড়ীতে থেকে নিজে গুলি করে তাকে হত্যা করেছে।

Comments

comments

Close
%d bloggers like this: