আজ: ২৭শে মে, ২০২০ ইং, বুধবার, ১৩ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৪ঠা শাওয়াল, ১৪৪১ হিজরী, বিকাল ৫:৪৯
সর্বশেষ সংবাদ
জেলা সংবাদ, প্রধান সংবাদ, বাংলাদেশ, রাজনীতি নাটোর-১ আসনে শান্তি কমিটির সভাপতির ছেলের হাতে নৌকা দিলো আওয়ামী লীগ !

নাটোর-১ আসনে শান্তি কমিটির সভাপতির ছেলের হাতে নৌকা দিলো আওয়ামী লীগ !


পোস্ট করেছেন: মতপ্রকাশ ডেস্ক | প্রকাশিত হয়েছে: ২৫/১১/২০১৮ , ৬:৩৭ অপরাহ্ণ | বিভাগ: জেলা সংবাদ,প্রধান সংবাদ,বাংলাদেশ,রাজনীতি


বাবা ছিলেন মুসলিম লীগ নেতা। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধে হানাদার পাকিস্তানী সেনাবাহিনীকে সহায়তা করার জন্য গঠিত শান্তি কমিটির স্থানীয় সভাপতি। ছাতনী গণহত্যায় যার জড়িত থাকার অভিযোগ রয়েছে। স্বাধীনতা-পরবর্তী বাংলাদেশে জিয়াউর রহমানের ‘জাগো দল’ এ যোগ দেন। জিয়াউর রহমান পরে বিএনপি গঠন করলে তিনি হন বাগাতিপাড়া উপজেলা বিএনপি’র সভাপতি। নাম তার আজিজুল হক।

একাত্তরে যুদ্ধাপরাধের দায়ে অভিযুক্ত আজিজুল হকের বাড়ি নাটোরের বাগাতিপাড়া উপজেলার সান্যাল পাড়ায়। এখন আর বেঁচে নেই।তার ছেলে শহীদুল ইসলাম বকুল  আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নাটোর-১ (বাগাতিপাড়া-লালপুর) আসনে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন। ওই আসনে তিনিই এবার নৌকার মাঝি।

এলাকাবাসী অভিযোগ করে বলছেন, শহীদুল ইসলাম  শুরুতে ছিলেন ছাত্রদলের দুর্ধর্ষ ক্যাডার। নব্বইয়ের দশকের প্রথম ভাগের কথা। লালপুরের আব্দুলপুর কলেজের এক ছাত্রলীগ নেতার হাতে কুপিয়ে তার কবজি থেকে কেটে নেন। হতভাগ্য ওই ছাত্রলীগ নেতার নাম বকুল। সেই বকুল আজ কোথায়? জানা গেলো, কবজি হারিয়ে এখন কৃত্রিম হাত লাগিয়ে শারীরিক-মানসিক যন্ত্রণা নিয়ে বেঁচে আছেন তিনি। স্থানীয় করিমপুর হাইস্কুলে শিক্ষকতা করেন। কিন্তু এসব নিয়ে গণমাধ্যমের সাথে কথাই বলতে চাইলেন না তিনি।

শান্তি কমিটির সভাপতি আজিজুল হকের ছেলে সেই ছাত্রদল ক্যাডার শহীদুল  একপর্যায়ে ক্ষমতার রাজনীতিতে ঘর বদলে হয়ে ওঠেন ছাত্রলীগার। ছাত্রলীগের উপজলা সভাপতি থেকে নাটোর জেলা সভাপতি। এখন আওয়ামী লীগের নাটোর জেলা সাংগঠনিক সম্পাদক। গায়ে মুজিবকোট। তার ফেসবুক প্রোফাইল ঘাঁটলে দেখা যাবে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় শীর্ষ নেতাদের সাথে ছবি। আর এবার তো একেবারে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ক্ষমতাসীন দলের প্রার্থী।

 

কিন্তু কী ভাবছেন তৃণমূলের নেতারা? কেমন করে মূল্যায়ন করছেন এই মনোনয়নকে তৃণমূলের কর্মী-সমর্থকরা?

আখচাষী সালাম বলেন, “ওর  বাপে তো রাজাকার ছিলো। সে নিজেও তো মাইনষের হাতটাত কাটছে।”

এদিকে লালপুর-বাগাতিপাড়ার বর্তমান সংসদ সদস্য আবুল কালামের প্রতি সবাই অসন্তুষ্ট থাকলেও নতুন হিসেবে আরো অনেক যোগ্য প্রার্থী ছিলো বলে অভিমত আওয়ামী লীগের অন্যান্য মনোনয়ন-প্রত্যাশীদের। নাম প্রকাশ না করার শর্ত দিয়ে তারা বলেন, “রাজাকারের পুত্রকে দলের পক্ষ থেকে মনোনয়ন দেওয়া হলে তা তৃণমূলে ভুল বার্তা দেয়। যারা মনোনয়ন কিনেছে দলের পক্ষে, তাদের মধ্যেই অনেক যোগ্য প্রার্থী আছে। কিংবা এ আসনটি মহাজোটের শরিকদেরও দেওয়া যেতো। যোগ্য প্রার্থী আছে জোটের শরিকদের মধ্যেও।”

তারা এক সুরে বললেন, “কুমির থেকে বাঁচতে আমরা আগুনের তাওয়ায় ঝাপ দিচ্ছি কিনা সেটা ভেবে দেখা দরকার।”

Comments

comments

Close