আজ: ২৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, বুধবার, ১৪ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২২শে সফর, ১৪৪৩ হিজরি, সকাল ৭:২৫
সর্বশেষ সংবাদ
খেলাধূলা চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী পাকিস্তানের বিপক্ষে সহজেই জিতল ভারত

চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী পাকিস্তানের বিপক্ষে সহজেই জিতল ভারত


পোস্ট করেছেন: মতপ্রকাশ ডেস্ক | প্রকাশিত হয়েছে: ২০/০৯/২০১৮ , ৭:১৭ পূর্বাহ্ণ | বিভাগ: খেলাধূলা


প্রথম ম্যাচে পুচকে হংকং বেশ নাকানিচুবানি খাইয়েছিল ভারতকে। ওই ম্যাচে কোনো অঘটন না ঘটলেও অতি কষ্টে জয় তুলে নিয়েছিল ধোনি-রোহিতরা। একদিনের ব্যবধানে সে তারাই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী পাকিস্তানের মোকাবিলায় নেমে একেবারেই অন্যরূপে আবির্ভূত হয়। প্রথমে পাকিস্তানকে স্বল্প রানে বেঁধে ফেলে, পরে সহজেই ৮ উইকেটে জয় তুলে নেয়।বুধবার দুবাই আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত ম্যাচে পাকিস্তানের করা ১৬২ রানের জবাবে ভারত ২ উইকেট হারিয়ে জয়ের লক্ষ্যে পৌঁছে যায়।

ব্যাটিং ব্যর্থতা ডুবিয়েছে পাকিস্তানকে। বাবর আজম ও শোয়েব মালিক বাদে কেউই মুখ তুলে লড়াই করতে পারেননি। একাধিক ব্যাটসম্যান নিজেদের উইকেট বিলিয়ে এসেছেন। ব্যাটিংয়ের শুরুতেই জোড়া ধাক্কা খায় পাকিস্তান। ওপেনার ইমাম-উল-হক  (২) ও ফখর জামান (০) আউট হন ভুবনেশ্বর কুমারের বলে। ডাউন দ্য উইকেটে এসে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দেন ইমাম। ফখর পুল করতে গিয়ে ক্যাচ দেন চাহালের হাতে।তৃতীয় উইকেটে প্রতিরোধ পায় পাকিস্তান। ৮২ রানের জুটি গড়েন শোয়েব মালিক ও বাবর আজম। ধীর গতিতে রান তুললেও পাকিস্তানকে এগিয়ে নিচ্ছিলেন দুই ব্যাটসম্যান। পাশাপাশি দুই ব্যাটসম্যানের ব্যাটিংয়ে ভারতও কিছুটা চিন্তায় পড়েছিল। এ জুটি ভেঙে রোহিত শর্মার মুখে হাসি ফোটান কুলদ্বীপ যাদব। বাঁহাতি রিস্ট স্পিনারের বলে এগিয়ে এসে মারতে গিয়ে বোল্ড হন বাবর। সাজঘরে ফেরার আগে ৬২ বলে সর্বোচ্চ ৪৭ রান করেন তিনি।বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি অধিনায়ক সরফরাজ আহমেদ। কেদার যাবদের বলে লং অনে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন সরফরাজ (৬)। সঙ্গী হারানোর পর পথ হারান শোয়েব মালিকও। পাকিস্তানের হয়ে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৪৩ রান করা মালিকের ইনিংসটি কাটা পড়ে রান আউটে। আম্বাতি রাইডুর সরাসরি থ্রোতে সাজঘরে ফেরেন মালিক।এরপর আর কোনো ব্যাটসম্যান দলের হয়ে লড়াই করতে পারেননি। শেষ দিকে ফাহিম আশরাফের ২১ ও মোহাম্মদ আমিরের অপরাজিত ১৮ রানের সুবাদে ১৬২ রানের পুঁজি পায় পাকিস্তান। চ্যাম্পিয়নস ট্রফির ফাইনালে ভারতকে ১৫৮ রানে অলআউট করেছিল পাকিস্তান। সেই জ্বালা আজ পাকিস্তানকে ফিরিয়ে দিল ভারত।ভারতের হয়ে বল হাতে কেদার যাদব ও ভুবনেশ্বর ৩টি করে উইকেট নেন। ২টি উইকেট পান জসপ্রিত বুমরাহসহজ লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে উদ্বোধনী জুটিতে ৮৬ রান পায় ভারত। ব্যাট হাতে ছোটোখাটো ঝড় উপহার দেন রোহিত শর্মা। ভারতের অধিনায়ক ৩৯ বলে করেন ৫২ রান। ৬ চার ও ৩ ছক্কায় সাজান ইনিংসটি। ১৪তম ওভারে তাকে আউট করে পাকিস্তানকে প্রথম সাফল্য এনে দেন শাদাব খান। লেগ স্পিনারের বলে বোল্ড হন রোহিত।আরেক ওপেনার শেখর ধাওয়ানও ছিলেন দারুণ। হাফ সেঞ্চুরির পথে এগিয়ে যাচ্ছিলেন বাঁহাতি ওপেনার। কিন্তু ফাহিম আশরাফ তাকে সাজঘরের পথ দেখান ৪৬ রানে। ৫৪ বলে ৬ চার ও ১ ছক্কায় ইনিংসটি সাজান ধাওয়ান। জয়ের বাকি কাজটুকু সারেন রাইডু ও কার্তিক। দুজনের অবিচ্ছিন্ন ৬০ রানের জুটিতে ভারতের জয় পেতে কষ্ট হয়নি। দুজনই অপরাজিত থাকেন ৩১ করে রান করে।এর আগে দুই দলই একটি করে ম্যাচ জিতে সুপার ফোরে খেলা নিশ্চিত করে।

Comments

comments

Close
%d bloggers like this: