আজ: ৪ঠা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, শনিবার, ১৯শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৯শে রবিউস সানি, ১৪৪৩ হিজরি, সকাল ১১:০২
সর্বশেষ সংবাদ
ফেসবুক থেকে অসম সাহসী একজন রাষ্ট্রনায়কের জন্য শুভ কামনা

অসম সাহসী একজন রাষ্ট্রনায়কের জন্য শুভ কামনা


পোস্ট করেছেন: মতপ্রকাশ ডেস্ক | প্রকাশিত হয়েছে: ২৫/০৪/২০১৮ , ১:০৬ পূর্বাহ্ণ | বিভাগ: ফেসবুক থেকে


বাসসের খবরে জানা যাচ্ছে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ”গ্লোবাল ওমেন’স লিডারশিপ” এওয়ার্ডে ভূষিত হচ্ছেন। অস্ট্রেলিয়ার সিডনিতে ২৭ এপ্রিল অনুষ্টেয় ‘২০১৮ গ্লোবাল সামিট অব উইমেন’ সম্মেলন চলাকালে যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক এনজিও গ্লোবাল সামিট অব উইমেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীকে আজীবন এই সম্মাননা এওয়ার্ড প্রদান করবে।

এই সম্মানপ্রাপ্তিতে প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দন। এটি বাংলাদেশের জন্যও গৌরবের-সম্মানের।

একজন সংবাদকর্মী হিসেবে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার শাসনকাল নিয়ে আমি একান্তে যখন ভাবি, তখন মুগ্ধ এবং একই সঙ্গে অপার বিস্ময়ে বিস্মিত হই। যেখানে বর্তমান বিশ্বে রাশিয়া ছাড়া কোনো দেশকেই পরোয়া করে না মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। গোটা বিশ্বই যেখানে প্রায় সমঝে চলে মার্কিন প্রশাসনকে। সেখানে একজন বাংলাদেশী প্রধানমন্ত্রী কীভাবে দিনের পর দিন মার্কিন কটমটে চোখের সামনে অকুতোভয় সাহস নিয়ে অবলীলায় মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে থাকেন! আমি ভাবি আর বিস্মিত হই।

এটি যে কত বড় গৌরবের— তা বুঝতে হলে আমাদেরকে সেই মার্কিন ভীতির যুগের কথা মনে আনতে হবে। এই ভীতি বর্তমান প্রধানমন্ত্রী তুড়ি মেরে উড়িয়ে দিয়েছেন ।  এবং এই গৌরব বোধ অনুধাবন করতে কাউকে আওয়ামী লীগ করতে হবে— এমনও নয়।

আমি রাজনৈতিক দলের কর্মী নই। পত্রিকার সাধারণ একজন সংবাদ কর্মী। ক্ষমতায় এখন আওয়ামী লীগ। তা-ই সমালোচনার যোগ্য অনেক বিতর্কিত সরকারি উদ্যোগের সমালোচনা করি। সাংবাদিকের কাজই তো  জনগণের মুখপাত্র হয়ে সরকারের সঙ্গে দরকষাকষি করে তুলনামূলক ভাল ফল বের করে আনার চেষ্টা। আমিও চেষ্টা করি। এতে সরকারি দলের অনেকে রাগ হয়। আমি এসব ভাবি না। আবার যখন সরকারি কোনো উদ্যোগের প্রশংসা করি, বিরোধী পক্ষ তখন রাগ হয়। আমি তা নিয়েও ভাবি না।

কোনো দলের স্বার্থ নিয়ে ভাবনা সাংবাদিকের কাজ নয়। সাংবাদিক কাজ করে খাবে। এই কাজের কাছেই সে দায়বদ্ধ, আর কারো কাছে নয়।

তবে বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর এই অসম সাহসীকতার গুণটির জন্য তাকে আলাদা করে সম্মান করতেই হবে। ইতিহাস থেকে যতটুকু পড়েছি, বঙ্গবন্ধুর মাঝে এই গুণটি ছিল প্রবলভাবে। একজন রাষ্ট্রনায়কের সাহসিকতা মানে একজন নাগরিকেরও সেই গৌরবের ভাগিদার। এ দেশের একজন নাগরিক হিসেবে এই ‘ফিলিংস’ আমাকে ভীষনভাবে গৌরবান্বিত করে।

অসম সাহসী একজন রাষ্ট্রনায়কের জন্য শুভ কামনা। সব সময়ের জন্য।

লিখেছেনঃ লুৎফর রহমান হিমেল  , বার্তা সম্পাদক, দৈনিক বাংলাদেশ প্রতিদিন । 

Comments

comments

Close