আজ: ২৯শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, বুধবার, ১৫ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৩০শে জিলকদ, ১৪৪৩ হিজরি, রাত ৪:১৩
সর্বশেষ সংবাদ
ধর্ম কথন জান্নাতের নিশ্চয়তা যে কাজে!

জান্নাতের নিশ্চয়তা যে কাজে!


পোস্ট করেছেন: মতপ্রকাশ ডেস্ক | প্রকাশিত হয়েছে: ০৬/০৪/২০১৮ , ১২:৪৮ পূর্বাহ্ণ | বিভাগ: ধর্ম কথন


‘হে নবী! আপনি মুসলমানদের বলে দিন, তারা যেন তাদের দৃষ্টি অবনত রাখে এবং নিজেদের লজ্জাস্থানের হেফাজত করে…’

মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সা.) বলেন, ‘যে ব্যক্তি আমাকে তার দুই চোয়ালের মধ্যবর্তী জিনিস (জিহ্বা) এবং দুই ঊরুর মধ্যবর্তী জিনিসের (লজ্জাস্থান) হেফাজতের নিশ্চয়তা দেবে, আমি তার জন্য জান্নাতের নিশ্চয়তা দেব।’ (বোখারি : ৬১০৯)। হাদিসে বর্ণিত এই তাৎপর্যপূর্ণ বক্তব্য বর্তমান প্রেক্ষাপটে খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ, সমাজের বাস্তবতা হচ্ছে, দুনিয়ায় গোনাহ, মারামারি, কাটাকাটি, দাঙ্গাহাঙ্গামা, জেলজুলুম, খুনখারাবি, নারী নির্যাতন, বেহায়াপনা, অশ্লীলতা থেকে শুরু করে যত ধরনের অপরাধ সংঘটিত হয় তার প্রধান কারণ এ দুটি জিনিস।

খেয়াল করে দেখুন, মানুষ নামাজ, রোজা, হজ ইত্যাদি ব্যক্তিগত আমলে ত্রুটি করলে তার কুফল ও শাস্তি ওই ব্যক্তি পর্যন্তই সীমাবদ্ধ থাকবে। পক্ষান্তরে জিহ্বা ও লজ্জাস্থানের অসংলগ্নতার কারণে সমাজের সর্বত্র এর কুপ্রভাব বিস্তার লাভ করে থাকে। এক সময় তা পুরো সমাজকে ধ্বংসের অতলে ডুবিয়ে ছাড়ে। সুতরাং ইসলাম উপযুক্ত কারণেই এ দুটি অসংলগ্নতা দূর করার শিক্ষা প্রদানের পাশাপাশি পূর্ণাঙ্গ আহকাম দান করেছে। পবিত্র কোরআনে বলা হয়েছে, ‘হে নবী! আপনি মুসলমানদের বলে দিন, তারা যেন তাদের দৃষ্টি অবনত রাখে এবং নিজেদের লজ্জাস্থানের হেফাজত করে। এটা তাদের জন্য পবিত্রতার মাধ্যম। নিশ্চয়ই আল্লাহ সব কিছু জানেন, যা কিছু লোক করে থাকে।’ (সূরা নূর : ৩০)।

কোরআনুল কারিমে আমাদের সমাজ কাঠামোতে মানুষের কামনা-বাসনা পূতঃপবিত্র রাখার জন্য সতর্ক করা হয়েছে। এ জাতীয় অসংখ্য নির্দেশনা দ্বারা মানুষের কান, চোখ অন্তর এবং তার সব ধ্যান-ধারণার ওপর আল্লাহর ভয় ও পরকাল ভাবনার ব্যাপারটি প্রয়োগ করা হয়েছে। এত কিছুর পরও যদি কেউ কোনো সুযোগ তালাশের মাধ্যমে অসদুপায় অবলম্বন করেÑ তবে তার জন্য রয়েছে ভয়াবহ ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি।

Comments

comments

Close