আজ: ১২ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, সোমবার, ২৯শে চৈত্র, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৩০শে শাবান, ১৪৪২ হিজরি, রাত ১২:৫৬
সর্বশেষ সংবাদ
অর্থ ও শিল্প, জেলা সংবাদ কৃষি খাতে চাঁদপুরের ব্যাংকগুলোতে ২শ’ ২৯ কোটি টাকা ঋণ বরাদ্দ : বিতরণ ৩০ কোটি টাকা

কৃষি খাতে চাঁদপুরের ব্যাংকগুলোতে ২শ’ ২৯ কোটি টাকা ঋণ বরাদ্দ : বিতরণ ৩০ কোটি টাকা


পোস্ট করেছেন: মতপ্রকাশ ডেস্ক | প্রকাশিত হয়েছে: ১০/১০/২০১৭ , ২:০৪ পূর্বাহ্ণ | বিভাগ: অর্থ ও শিল্প,জেলা সংবাদ


-জেলার ৮ উপজলোয় রাষ্ট্রায়ত্ত ও বেসরকারি ব্যাংকগুলোতে ২০১৭-২০১৮ র্অথবছরে ২শ’ ২৯ কোটি ৭৯ লাখ টাকা কৃষি ও দারিদ্রবিমোচনে ঋণ বিতরণের লক্ষ্যে মাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। সরকারি সোনালী, অগ্রণী, জনতা , কৃষি, কর্মসংস্থান, রূপালী, বেসিক ব্যাংকে ও পল্লী উন্নয়ন বোর্ড (বিআরডিবি) রয়েছে, এর মধ্যে রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলোতে ১৯৭ কোটি ৩২ লাখ ও বেসরকারি ব্যাংকগুলোতে ৩২ কোটি ৫৬ লাখ টাকা বাংলাদেশ ব্যাংক বিতরণের নির্দেশ দিয়েছে। এ পর্যন্ত ব্যাংকগুলো বিতরণ করেছে ৩০ কোটি টাকা ।
সংশ্লিষ্ট ব্যাংকের আঞ্চলিক র্কাযালয়ের সূত্রে জানা যায়, সোনালী ব্যাংকের ২০টি শাখায় ১১ কোটি ২০ লাখ টাকা, অগ্রণী ব্যাংকের ২০টি শাখায় ১৬ কোটি ৫৯ লাখ, জনতা ব্যাংকের ১৫টি শাখায় ৩৮ কোটি ৬০ লাখ ৭৫ হাজার, বাংলাদশে কৃষি ব্যাংকের ২৮টি শাখায় ১২২ কোটি ৩৭ লাখ, বেসিক ব্যাংকের ১টি শাখায় ১ কোটি ও পল্লী উন্নয়ন বোর্ড (বিআরডিবি)তে ৮টি উপজেলায় ২ কোটি ৮০ লাখ টাকা চলতি অর্থবছরে কৃষি ও দারিদ্রবিমোচনে জন্য বিতরণের লক্ষ্যে বরাদ্দ দেয়া হয়েছে।
২০১৭-২০১৮ অর্থবছরে জুলাই ও আগস্ট এ দু’মাসে ব্যাংকগুলো ১৬ কোটি ১ লাখ ৬৯ হাজার টাকা এবং ও বেসরকারি ব্যাংকগুলোতে ১৩ কোটি ৯৯ লাখ ৭৪ হাজার টাকা বিতরণ করেছে।

ব্যাংকগুলো ফসল উৎপাদন, মৎস্য চাষ, পশুপালনসহ বিভিন্ন খাতে ওই বরাদ্দকৃত ঋণ বিতরণ করেছে।
এদিকে সংশ্লিষ্ট ব্যাংকের শাখাগুলো ২০১৭-২০১৮ র্অথবছর ৫% সরলসুদে‘দুগ্ধ উৎপাদন ও কৃত্রিম প্রজনন পুন:অর্থায়ন স্কীম’ এর আওতায় বিতরণের উদ্দেশ্যে ২ কোটি ২৩ লাখ ৫০ হাজার টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে এবং বিতরণ করেছে ১শ’ ৩৪ জন গ্রাহকের মধ্যে ১ কোটি ৮২ লাখ ৫০ হাজার টাকা। যার হার ৮২%, ৪% সুদে ‘ডাল, তৈলবীজ, মসলা জাতীয় ফসল ও ভুট্টা চাষাবাদের জন্যে ৩১ লাখ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে।
সোনালী ব্যাংকের ডিজিএম মো. দেলোয়ার হোসাইন আব্বাসী জানান, একজন কৃষকের ঋণ পাওয়ার প্রথম শর্তহচ্ছে তার অবশ্যই আবাদ উপযোগী জমি থাকতে হবে। তবে বর্গা চাষিরা জমির মালিকদের অনুমতি পত্রসহ আবেদন করলে ঋণ পাবেন । মৎস্য, গবাদিপশু ও হাঁস-মুরগী প্রতিপালনে সর্ব্বোচ্চ ৫০ হাজার টাকা পর্যন্ত ঋণ পাবেন।’
বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক চাঁদপুরের মুখ্য আঞ্চলিক ব্যবস্থাপক মো. আলী আজগর জানান, কৃষি ব্যাংক একটি বিশেষায়িত ব্যাংক । তাই কৃষি উৎপাদন, সেচযন্ত্র ক্রয়, পাওয়ারটিলার ক্রয়, গরু মোটাতাজাকরণ, মুরগীর ফার্ম, গাভীপালন, মৎস্যচাষ, শাক-সবজি উৎপাদন ও রবিফসল উৎপাদন করতে কৃষকদের সহজ শর্তে কৃষি ঋণ দিয়ে থাকি আমরা। সঠিকভাবে মূল্যায়ন করে বর্গাচাষিদেরও কৃষিঋণ প্রদান করা হয়।

অগ্রণী ব্যাংকের এজিএম গীতা রাণী মজুমদার বলেন, কৃষির উন্নযনে আমরা কৃষকদের মাঝে ঋণ বিতরণ করে আসছি। বিভিন্ন শ্রেণিভিত্তিক ঋণ আদায়ে অগ্রণী ব্যাংক গ্রাহকদের সাথে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ অব্যাহত রয়েছে। ব্যাংক কর্মকর্তারা যেমন ঋণ আদায় করছে তেমনি তাৎক্ষণিক ঋণ প্রদানও করে যাচ্ছে।
তিনি আরো বলেন, ‘২০১৭-২০১৮ অর্থবছরে ঋণ প্রদানের বেলায় জমি আছে ও নিজে চাষাবাদ করে এমন কৃষকদের আমাদের অগ্রণী ব্যাংকের মাঠ সহকারীগণ তাৎক্ষণিকভাবে ঋণ দেবার প্রস্তাব করে থাকেন। অগ্রণী ব্যাংক ৯% সরল সুদে কৃষি উৎপাদন খাতে ঋণ বিতরণ করে।

Comments

comments

Close
%d bloggers like this: