আজ: ২৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, বুধবার, ১৪ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২২শে সফর, ১৪৪৩ হিজরি, সকাল ৭:০৪
সর্বশেষ সংবাদ
বিশেষ প্রতিবেদন নারিকেল চাষ করে সাফল্য পাবেন যেভাবে

নারিকেল চাষ করে সাফল্য পাবেন যেভাবে


পোস্ট করেছেন: মতপ্রকাশ ডেস্ক | প্রকাশিত হয়েছে: ০১/০২/২০১৬ , ১২:২৫ পূর্বাহ্ণ | বিভাগ: বিশেষ প্রতিবেদন


ডাবের পানিতে ক্যালসিয়াম, ফসফরাস ও অন্যান্য পুষ্টি উপাদান রয়েছে। নারিকেলের শাঁষে স্নেহ জাতীয় পদার্থের পরিমাণ বেশি। তাই নারিকেল পিত্তনাশক ও কৃমিনাশক। এর মালা বা আইচা পুড়িয়ে পাথরবাটি চাপা দিয়ে পাথরের গায়ে যে গাম বা কাই হয়, তা দাদ রোগের মহৌষধ। এককথায়, নারিকেল গাছের প্রতিটি অঙ্গই কোনো না কোনো কাজে লাগে।

jagonews24

মাটি
নারিকেল গাছের জন্য নিকাশযুক্ত দো-আঁশ থেকে পলি দো-আঁশ মাটি ভালো।

চারা 
নারিকেল হতে বীজ নারিকেল তৈরি করা হয়।

jagonews24

রোপণ
মধ্য-জ্যৈষ্ঠ থেকে মধ্য-আশ্বিন মাস চারা রোপণের জন্য উপযুক্ত সময়। লাইন থেকে লাইন এবং গাছ থেকে গাছের দূরত্ব ৮ মিটার রাখা দরকার। প্রতি একরে ৬৩টি চারা রোপণ করা যায়।

সার 
রোপণের আগে চারিদিকে ১ মিটার করে গর্ত তৈরি করে প্রতি গর্তে টিএসপি ২৫০ গ্রাম, এমওপি ৪০০ গ্রাম ও ১০ কেজি গোবর সার দিতে হয়। পূর্ণবয়স্ক গাছে সারের পরিমাণ বাড়াতে হবে। প্রতি বছর ১০ কেজি গোবর সার দিতে হয়। সব সার দুই ভাগে দিতে হয়। একভাগ মধ্য-বৈশাখ থেকে মধ্য-আষাঢ় এবং অন্য ভাগ মধ্য-ভাদ্র থেকে মধ্য-কার্তিক মাসে দিতে হয়। গাছের গোড়া থেকে অন্তত ১.৭৫ দূরে বৃত্তাকার রিং করে সার দিতে হয়। গাছে পটাশিয়াম ও বোরণের অভাব হলে ফল ঝরে পড়ে।

jagonews24

সেচ 
শুকনো মৌসুমে ১৫ দিন পরপর ২-৩ বার সেচ দেওয়া উত্তম। তবে বর্ষা মৌসুমে পানি নিকাশ করা দরকার।

ফল 
ফুল ফোটার পর ১১-১২ মাস পর ফল সংগ্রহের উপযুক্ত হয়। পাকা অবস্থায় নারিকেলের রং সবুজ থেকে বাদামি বা খয়েরি রং ধারণ করে। সঠিকভাবে নারিকেল চাষ করতে পারলে এক বছরের মাথায় অবশ্যই সাফল্য পাবেন।

Comments

comments

Close
%d bloggers like this: